ওয়াশিংটন: ৩ নভেম্বরের রয়েছে নির্বাচনের। তার আগে দুই প্রার্থী যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী, প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বৃহস্পতিবার রাতে বিতর্কে মুখোমুখি হলেন। সেই সময় করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা নিয়ে তীব্র ভাবে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন দুজনে।

বাইডেন ট্রাম্প সম্পর্কে বলেছেন, “উনি বলেছেন যে আমরা এই মহামারী মোকাবিলায় ভালো অবস্থানে রয়েছি খুব শীঘ্রই এর শেষ হবে।কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা ২২০,০০০ ছাড়িয়ে গিয়েছে।” বাইডেন জানিয়েছেন, এতগুলো মৃত্যুর জন্য যিনি দায়ী তার প্রেসিডেন্ট পদে থাকা উচিত নয়। এই সেই একই মানুষ যে আপনাদের বলেছে যে ইস্টার আসার আগেই এই মহামারী চলে যাবে।

এদিকে ট্রাম্প বাইডেনকে অভিযুক্ত করেছেন, উনি তো প্রেসিডেন্ট হলে এই ভাইরাসের বিস্তার বন্ধ করতে পুরো দেশকে লকডাউনের আওতায় নিয়ে আসবেন। ট্রাম্প বলেন, “যদি আমাদের বিশাল আমলাতন্ত্রের কোন একজন বলেন দেশ বন্ধ করে দিতে, তাহলে সে তাই করবে। “

তবে ৭০ বছর বয়সী এই দুই প্রার্থী নিরব ছিলেন যখন প্রেসিডেন্ট বিতর্ক বিষয়ক স্বাধীন কমিশন দুই মিনিটের জন্য তাদের মাইক্রোফোন বন্ধ করে দেয়। তখন তারা কোনও বাধা ছাড়াই করোনাভাইরাস নিয়ে তাদের উদ্বোধনী বক্তব্য দেন। সেপ্টেম্বরের প্রথম বিতর্কের তুলনায় এই শেষ বিতর্কটি ছিল অনেক শৃঙ্খলাপরায়ণ। প্রথম বিতর্কে বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হয় যখন উভয় প্রার্থী ক্রমাগত একে অপরকে তাদের মন্তব্য শেষ করতে বাধা দিচ্ছিলেন।

ট্রাম্প বাইডেনের চেয়ে বেশি বাধা দিয়েছেন, যা রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে খারাপ প্রেসিডেন্ট বিতর্ক ছিল। তবে এবার একবার ট্রাম্প, তারপর বাইডেন, তাদের উদ্বোধনী বক্তব্য প্রদান করেন। তবে প্রশ্নোত্তর পর্বে তারা একে অপরের বিরুদ্ধে বিদ্রূপ মন্তব্য করতে থাকেন।

টেনেসির ন্যাশভিলের বেলমন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিতর্ক মঞ্চে সঞ্চালক এনবিসি নিউজের হোয়াইট হাউজ সংবাদদাতা ক্রিস্টেন ওয়েলকারের প্রশ্নের উত্তর দেন প্রার্থীরা।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।