হেলসিংকি:  প্রধানমন্ত্রী মহিলা হলেই সবাই দ্বিতীয়বার ঘুরে তাকান। তাও আবার যদি তিনি অল্পবয়সী ও সুন্দরী হন। তেমনই এক মহিলা প্রধানমন্ত্রী এবার বিতর্কের মুখে। ছবিতে দেখা গিয়েছে তাঁর পরণে ‘লো-কাট ব্লেজার।’

ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সানা মারিন একটি ছবি পোস্ট করেছেন, যেখানে তাঁর পরণে লো-কাট ব্লেজার। ৩৪ বছরের ওই সুন্দরী প্রধানমন্ত্রীর এমন পোশাক নিয়ে বিতর্ক হয়েছে রীতিমত।

একটি ফ্যাশন ম্যাগাজিনে তাঁর সেই ছবি বেরিয়েছে। সেই ছবি ঘিরেই যত বিতর্ক। তাঁর মত একটি পদে থেকে নাকি এমন ছবি দেওয়া উচিৎ নয়। এমন দাবি তুলেছেন অনেকেই।

কেউ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী নাকি মডেল? এতে নাকি তাঁর যোগ্যতা ক্ষুন্ন হয়েছে।

ফিনল্যান্ডের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, এই মাসের শুরুতেই সানা মারিন এক বিখ্যাত ম্যাগাজিন ‘ট্রেন্ডি’র জন্য এক ফটোশ্যুট করেন। ছবির শ্যুটের জন্য তাঁকে কালো রঙের একটি ব্লেজার পরতে হয়।

বিতর্ক শুরু হয় এই ব্লেজারের কাট ও ডিজাইন নিয়েই। সানার পরনে ছিল শুধুমাত্র ওই ব্লেজার এবং সেটি বুক পর্যন্ত কাটা। এই ছবিই কভারইমেজ করে ‘ট্রেন্ডি’।

সানার পরনের ওই ব্লেজার দেখে প্রায় অধিকাংশ নেটিজেনের মনে হয়েছে ‘ইনঅ্যাপ্রোপিয়েট ড্রেস’! প্রধানমন্ত্রীর এমন পোশাক পরা উচিত নয়, এমনটাই মন্তব্য করেছেন নেটিজেনরা।

তবে অনেকেই তাঁকে সমর্থন করতে এগিয়ে এসেছেন। কয়েক’শ মহিলা প্রধানমন্ত্রীর সমর্থনে নিজেদের লো কাট ব্লেজার পরা ছবি শেয়ার করেছেন। তাঁদের বক্তব্য, এতে কারও যোগ্যতা বা ব্যক্তিত্ব ক্ষুণ্ণ হয় না।

২০১৯-এর ডিসেম্বরে প্রধানমন্ত্রী পদে আসেন সানা মারিন। দেশের ইতিহাসেই তিনিই সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী হন। পাঁচটি দলের একটি জোটের নেতৃত্বে রয়েছেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.