আগরতলা:  ঘটনা ১– রাজ্যের অন্যতম জনবহুল এলাকা উদয়পুর৷ সেখানেই প্রকাশ্যেই ভোটারদের বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠল৷ এক তরুণী ভোটার আক্রান্ত হলেন৷ তাঁকে যেভাবে ঘিরে ধরা হয়েছে তা দেখে স্তম্ভিত জনসাধারণ৷ রীতিমতো অশালীন স্পর্শের অভিযোগ৷ হাতে ভোটার কার্ড নিয়ে ওই তরুণী সরাসরি ভোট দিতে মরিয়া৷ তবে তিনি ভোট দিতে পেরেছেন কিনা তা জানা যায়নি৷

ঘটনা- ২ অন্য আরেকটি কেন্দ্রে এক বৃদ্ধা ভোটার তাঁর আত্মীয়ের সঙ্গে ভোট দিতে এসেছিলেন৷ তাঁকেও ভোট কেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হয়নি৷ এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন তিনি৷ সরাসরি ছাপ্পাবাজদের বিরুদ্ধে হুঙ্কার ছাড়েন৷ তিনিও পাল্টা দাবি করে ভোট না দিয়ে নড়বেন না৷ বৃদ্ধার হুমকির জেরে পরে ভোট কেন্দ্র থেকে সাময়িক সরে যায় ছাপ্পাবাজরা৷ এ ক্ষেত্রেও অভিযুক্ত বিজেপি৷

ঘটনা-৩ তরুণী বারে বারে বলছিলেন তিনি ভারতীয়, গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে চান৷ তবুও তাঁকে বাঁধা দিচ্ছিল কয়েকজন৷ একসময় তিনি রুখে দাঁড়ালে তাতেই পালায় হামলাকারীরা৷ অভিযোগ, এই ঘটনায় জড়িত শাসক বিজেপি৷

সবকটি ঘটনাই সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে৷ ত্রিপুরার লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফা ঘিরে এমনিতেই রাজনৈতিক সংঘাতের খবর আসছে৷ তার মাঝে মহিলা ভোটারদের উপর হামলার অভিযোগ উঠতে শুরু করল৷ প্রতি ক্ষেত্রেই অভিযুক্ত বিজেপি৷ যদিও শাসক দলের তরফে সেই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে৷ বিরোধী

নির্বাচনে ক্রমাগত উত্তপ্ত হয়েছে ত্রিপুরা৷ লোকসভার প্রথম দফায় পশ্চিম ত্রিপুরা আসনের একাধিক বুথে ছাপ্পা ও ভোটারদের বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠছে৷ সব ক্ষেত্রে অভিযোগের তীর শাসক বিজেপির বিরুদ্ধে৷ এছাড়া কয়েকটি কেন্দ্রে বিরোধী সিপিএম ও কংগ্রেসের মধ্যে মারামারির ঘটনাও আসছে৷ বিভিন্ন কেন্দ্রে মহিলা ভোটারদের হেনস্থার ঘটনায় ত্রিপুরায় নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধেও সরব হচ্ছেন ভোটাররা৷

এদিকে ভোট দিয়ে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা মহারাজা প্রদ্যোৎ কিশোর দেববর্মা জানান, নির্ভয়ে ভোটদানের পরিবেশ তৈরি না করলে চরম ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ বিজেপির বিরুদ্ধে ভোটে কারচুপির অভিযোগ তুলে তাঁর হুঙ্কার যারা জড়িত, যে মন্ত্রীরা এই ঘটনার মদত দিচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হবে৷

এদিকে শাসক বিজেপির বিরুদ্ধে প্রধান বিরোধী সিপিএম সরব৷ তাদের অভিযোগ, ভোট লুঠ চলছে রাজ্যে৷ বিভিন্ন কেন্দ্রে বাম কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেন৷ তবে সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপি৷ তবে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব ভোট দিতে এসে জানান নির্বাচন হচ্ছে শান্তিতেই৷ অন্যদিকে বাম প্রার্থী তথা বিদায়ী সাংসদ শঙ্কর প্রসাদ দত্ত ভোট দিয়ে এসে বলেন, নির্বাচন নির্বিঘ্নে হলে জয় নিশ্চিত৷ আর তৃতীয় প্রতিদ্বন্দ্বী তথা অন্যতম আলোচিত কংগ্রেস নেতা সুবল ভৌমিক আগে থেকেই ভোট কারচুপির বিরুদ্ধে সরব হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেছেন৷ এই কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী প্রতিমা ভৌমিক জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী৷

গত বিধানসভা নির্বাচনে ত্রিপুরায় দীর্ঘ ২৫ বছরের বাম শাসন শেষ হয়৷ জয়ী হয় বিজেপি ও আইপিএফটি জোট৷ তারপরেই গ্রাম পঞ্চায়েত ও উপজাতি স্বশাসিত এলাকার নির্বাচনে বিপুল জয় পায় বিজেপি৷ নব্বই শতাংশের বেশি আসনে জয়ী হওয়ার পর শাসক দলের বিরুদ্ধে রিগিংয়ের অভিযোগ উঠেছে৷ আর লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে বাধা পিতে হয়েছে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিরোধী নেতা মানিক সরকারকে৷