আগরতলা: বিরোধী দল, সংবাদ মাধ্যম, খোদ সরকারের প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বারবার অভিযোগ, করোনা মোকাবিলায় সুষ্ঠু পথ নিতে ব্যর্থ সরকার। এসবের জবাব দিতে গিয়ে সংবাদ মাধ্যমকেই হুমকি দেওয়ার অভিযুক্ত মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব।

সাব্রুমে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের শিলান্যাস করতে গিয়ে শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রাজ্যের কিছু সংবাদপত্র কোভিড ১৯ নিয়ে বিভ্রান্তিকর সংবাদ পরিবেশন করছে। যারা এমন করছে কোনও অবস্থায় তাদের মাফ করব না।

মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যের পর থেকেই রাজনৈতিক মহলে শোরগোল। অভিযোগ, সংবাদমাধ্যমকে হুমকি দিয়েছেন তিনি। তবে এই বিষয়ে বিজেপির প্রদেশ শাখা নীরব।

অন্যদিকে শুক্রবার গভীর রাতে আগরতলা জিবি হাসপাতালে আচমকা অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ হওয়ায় রোগী ও চিকিৎসকরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী তথা বিজেপির হেভিওয়েট নেতা সুদীপ রায়বর্মণ রাতে হাসপাতালে পৌঁছান। পরে তিনি বলেন, অতি দ্রুত মেকানিক ডেকে অক্সিজেন সরবরাহ মেশিন পুনরায় স্বাভাবিক করাই। তিনিও ক্ষেদ প্রকাশ করেছেন।

এর আগেও বারবার রাজ্যের করোনা মোকাবিলা ব্যবস্থা নিয়ে সরকারের ভূমিকার কড়া সমালোচনা করেছেন প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। এর জের সরকারের অন্দরমহল ও রাজ্যে তীব্র চাঞ্চল্য পড়ে। গভীর রাতে তিনি নিয়ম ভেঙে কোভিড হাসপাতালে গেছেন কেন এমনও প্রশ্ন তুলছেন কেউ কেউ।

অন্যদিকে বিরোধী নেতা ও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারের সরাসরি অভিযোগ, করোনা মোকাবিলায় ব্যার্থ ত্রিপুরা সরকার। তিনি বলেছেন, বাম আমলে আগরতলার জিবি হাসপাতাল ছিল অন্যতম আশা ভরসা। সরকার পরিবর্তনের পর সেই হাসপাতালের পরিস্থিতি দিনকে দিন অবনতি হচ্ছে। রাজ্যে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার সরকারি অব্যবস্থার ফল বলেই তিনি অভিযোগ করেন।

উত্তর পূর্ব ভারতে ত্রিপুরাতেই এখন করোনার হামলা ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। সোশ্যাল সাইটে হাসপাতালের অব্যবস্থা, চিকিৎসার অভাবে রোগী মৃত্যু, সংক্রামক কোভিড রোগীর স্থানান্তর নিয়ে বিস্তর অভিযোগ উঠে আসছে। মর্গে কোভিড রোগীর দেহ পোকায় খাচ্ছে এমন ছবি প্রকাশ হওয়ার পর আলোড়িত ত্রিপুরা।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।