আগরতলা: এই নিয়ে দ্বিতীয়বার বামপন্থী সংগঠনের রক্তদান শিবিরের হামলা, রক্তদাতাদের মারধর ও ভাঙচুরে অভিযুক্ত শাসক বিজেপি। ঘটনার জেরে প্রবল আলোড়ন ছড়িয়েছে। আহত রক্তদাতাদের চিকিৎসা চলছে। সম্প্রতি ত্রিপুরায় রক্ত সংকট মেটাতে বিরোধী বাম শিবির রক্তদান কর্মসূচি পালন করে।

সেখানে হামলার জেরে দেশ জুড়েই বিক্ষোভ দেখায় বিভিন্ন চিকিৎসক সংগঠন ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা।একইভাবে বাম সংগঠনগুলিও ত্রিপুরার পাশপাশি সব রাজ্যে প্রতিবাদ জানায়।

সেই ঘটনার পর রবিবার বিশ্ব রক্তদান দিবস উপলক্ষে রাজ্যের বিলোনীয়ায় দক্ষিন সোনাইছড়িতে বাম ছাত্র-যুবদের উদ্যোগে রক্তদান শিবির চলছিল। অভিযোগ, এই রক্তদান শিবিরে হামলা ও রক্তদাতাদের মারধর করে বিজেপির সমর্থকরা।

তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা, এবারেও রক্তদান শিবিরে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিরোধী নেতা মানিক সরকার ঘুরে যাওয়ার পরেই হামলা হয়। জখম রক্তদাতাদের চিকিৎসা চলছে গোমতী জেলা হাসপাতালে। ত্রিপুরা সিপিআই(এম) তাদের ফেসবুক পেজে জখম রক্তদাতাদের ছবি প্রকাশ করেছে। হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন মানিক সরকার।

তাঁর হুঁশিয়ারি, এভাবে আটকে রাখা যাবে না। স্পষ্টই তিনি সরকারে থাকা বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন। তবে ত্রিপুরা বিজেপি এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেয়নি। এদিকে প্রাক্তন মন্ত্রী ও বিধায়ক বাদল চৌধুরী হাসপাতালে গিয়ে আহতদের সঙ্গে দেখা করেন। তিনিও কড়া নিন্দা করেন।

রাজ্যে করোনা সংক্রমণ বড়সড় চেহারা নিয়েছে। মৃত্যু হয়েছে। এই অবস্থায় অন্যান্য চিকিৎসায় প্রয়োজনীয় রক্তের সংকট কাটাতেই বাম যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই রক্তদান শিবিরের আয়োজন করে। বিরোধী দলের অভিযোগ, রক্তদান শিবিরে বার বার হামলা হচ্ছে কিন্তু প্রশাসন নীরব।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.