প্রদ্যুত দাস, জলপাইগুড়ি: দ্বিতীয় দফায় ১৮ এপ্রিল জলপাইগুড়িতে ভোট৷ তাই নির্বাচনী প্রচারে পারদ চড়াতে এখন ব্যস্ত তৃণমূল। এখনও পর্যন্ত প্রচারে বিরোধীদের পিছনে ফেলে এগিয়ে রয়েছেন জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী বিজয় চন্দ্র বর্মণ। এমনই দাবি করছেন দলের জেলা সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তী।

বুধবার সকালে জলপাইগুড়ির আকাশ ছিল পরিষ্কার। চৈত্রের কড়া রোদ্দুরে শহরের ৮, ৯ ও ১০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের সঙ্গে নিয়ে নির্বাচনী প্রচারে ঝড় তুলল তৃণমূল। প্রার্থী বিজয় চন্দ্র বর্মণের দু’পাশে এদিন ছিলেন দলের দুই অভিভাবক। একজন জেলা সভাপতি আর অন্যজন শহর ব্লক সভাপতি। দুই সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তী ও মোহন বসুকে সঙ্গে নিয়েই এদিন প্রচারে প্রার্থীর দাবি জয় নিশ্চিত।

প্রার্থী বিজয় চন্দ্র বর্মণ বলেন, গত লোকসভা নির্বাচনের সঙ্গে এবছরের লোকসভা নির্বাচন অনেক বেশি সহজ। জয় সম্পর্কে ১০০ শতাংশ নিশ্চিত। জিতলে উন্নয়ন করব৷ পাশাপাশি বকেয়া প্রকল্প রুপায়ন করা, শিল্প স্থাপন ও নতুন কলেজ গড়ার কথা তিনি বলেন৷

সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, ‘‘রাজ্যের ৪২ টি আসনের মধ্যে জলপাইগুড়ি কেন্দ্রে দলের ফল রেকর্ড সৃষ্টি করবে। উন্নয়নকে হাতিয়ার করেই দলের প্রচার চলছে জোরকদমে। মানুষের কাছে তৃণমূল ছাড়া বিকল্প কেউ নেই।’’ পাশাপাশি তিনি দাবি করেন আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহারেও দলের ফল যথেষ্ট ভালো হবে। ওই দুই কেন্দ্রের মানুষেরাও তৃণমূল প্রার্থীকে বিপুল ভোটে জয়ী করবেন।

জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী মনিকুমার ডার্নাল, বামফ্রন্টের টিকিট পেয়েছেন ভগীরথ রায়, বিজেপি হয়ে লড়াই করছেন জয়ন্ত রায়৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও