স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা:  কদিন আগেই “নিজেদের মতে, নিজেদের গান” গেয়েছিলেন টলিউডের এক ঝাঁক শিল্পী৷  তাঁদের বার্তা ছিল, “আমি অন্য কোথাও যাব না, আমি এই দেশেতেই থাকব।” গানের মাধ্যমেই সেই বার্তার জবাব দিয়েছেন বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo), রুদ্রনীল ঘোষরা (Rudranil Ghosh)। তাঁদের মিউজিক ভিডিওতে বলা হল ‘তুমি অন্য কোথাও যেও না তুমি এই দেশেতেই থাকো’। আর এই মিউজিক ভিডিও সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়াতে পারে এই অভিযোগ তুলে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হচ্ছে তৃণমূল৷

বুধবার বিজেপি ওয়েস্ট বেঙ্গল ফেসবুক পেজ থেকে গানটি পোস্ট করে লেখা হয় “বড় যত্ন করে মিথ্যে বলে বিকৃত করে ইতিহাস, বৃথা স্বপ্ন দেখো বাঙালি আবার পড়বে তোমার সিলেবাস”। গানে বাবুল-রুদ্রনীল ছাড়াও রয়েছেন অভিনেত্রী রূপা ভট্টাচার্য (Rupa Bhattacharya)। বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠক করে তৃণমূলের মুখপাত্র সুখেন্দু শেখর রায় বলেন, “এই মিউজিক ভিডিও নিয়ে আজ আমরা নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষন করব। জনপ্রতিনিধিত্ব আইন অনুযায়ী এই ভিডিও করা যায় না। সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির জন্য এসব করা হয়েছে৷ পাঁচ দফার ভোটের আগে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা করছে বিজেপি৷”

আরও পড়ুন: মিলল না মিঠুনের রোড-শোয়ের অনুমতি, তুমুল বিক্ষোভ বিজেপি কর্মীদের

ভারতের মাটিতে মিথ্যা, ঘৃণার জায়গা নেই৷ এই দেশ ভালোবাসার দেশ। এই বার্তা দিয়েই গান বেঁধেছিলে টলিউড একঝাঁক অভিনেতা ও সঙ্গীত শিল্পী। গানের মাধ্যমে দেশের বর্তমান যে ছবি তাঁরা এঁকেছেন তাতে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি, মিথ্যে প্রতিশ্রুতি, মুখ থুবড়ে পড়া অর্থনীতি, মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্ব প্রকট হয়েছে। নতুন মিউজিক ভিডিও “নিজেদের মতে, নিজেদের গান” ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে। গানের মূল কথা “আমি অন্য কোথাও যাব না, আমি এই দেশেতেই থাকব।”

‘সিটিজেনস ইউনাইটেড’ ফেসবুক পেজের পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হয়েছিল মিউজিক ভিডিও “নিজেদের মতে, নিজেদের গান”। গানের কথা লিখেছেন অনির্বাণ ভট্টাচার্য। গানটির ভিডিও-তে দেখা গিয়েছে বিশিষ্ট থিয়েটার শিল্পী রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, অভিনেতা সব্যসাচী চক্রবর্তী, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, অনির্বাণ ভট্টাচার্য, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, কৌশিক সেন, ঋদ্ধি সেন, ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়, সাহানা বাজপেয়ী, রেশমি সেন, চন্দন সেন, শান্তিলাল মুখোপাধ্যায়, সুমন মুখোপাধ্যায়, রাহুল অরুণোদয় বন্দ্যোপাধ্যায়, পিয়া চক্রবর্তী, সুরঙ্গনা বন্দ্যোপাধ্যায়, কৌশিক সেন, রেশমি সেন, সেনোরিটা গারু, পিয়া চক্রবর্তীর মতো তারকাদের।

গানটি গেয়েছেন অর্ক মুখোপাধ্যায়, শুভদীপ গুহ, অনির্বাণ, অনুপম রায়, অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, রূপঙ্কর বাগচী, উজান চট্টোপাধ্যায়, ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়, ঋদ্ধি সেন। ভিডিওটি যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন ঋদ্ধি ও ঋতব্রত। এই দু’জনের সঙ্গে মিলে চিত্রনাট্য লিখেছেন সুরঙ্গনা। মধুরা পালিত সামলেছেন ক্যামেরার দায়িত্ব। ইতিমধ্যেই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ার ভাইরাল৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।