স্টাফ রিপোর্টার, আসানসোল: নিজেদের মধ্যে সমস্ত রাজনৈতিক শত্রুতা দূরে ঠেলে স্কুলের ফি বৃদ্ধি ইস্যু একসঙ্গে পথে নামল তৃণমূল, বিজেপি, সিপিএম, কংগ্রেস। এই নজিরবিহীন ঘটনার সাক্ষী রইল গোটা জেলা।

করোনা পরিস্থিতিতে স্কুল ফি’র মধ্যে টিউশন ফি ছাড়া অন্যান্য ফি বাতিলের দাবিতে রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভ চলছে। এই একই দাবিতে প্রায় মাস দুই ধরে আন্দোলন করছে দুর্গাপুরে অভিভাবকদের যৌথ ফোরাম। স্কুলে স্কুলে বিক্ষোভ ছাড়াও প্রতিবাদ মিছিল হয় দুর্গাপুরের বিভিন্ন এলাকায়। শুক্রবার তাঁদের পাশে দাঁড়ালেন জেলার সমস্ত রাজনৈতিক দলের নেতারা। এ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিলে সিপিএম বিধায়ক, বিজেপি জেলা সভাপতি, কংগ্রেসের প্রাক্তন জেলা সভাপতি ও দুর্গাপুর নগর নিগমের মেয়র পারিষদ সদস্য ও আইএনটিটিইউসির জেলা সভাপতি হাঁটলেন একসঙ্গে।

সম্প্রতি বেসরকারি স্কুলের বকেয়া ফি মেটানোর নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। আদালত ৩১ জুলাই পর্যন্ত বাকি থাকা ফি আগামী ১৫ অগস্টের মধ্যে অভিভাবকদের মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। নির্দেশে বলা হয়েছে, বকেয়া স্কুল ফি ৮০% পর্যন্ত মিটিয়ে দিতে হবে। স্কুল ফের অল্প কিছু অংশ বকেয়া থেকে থাকলেও কোনও ছাত্রছাত্রীকে অনলাইন ক্লাস বা পরীক্ষা থেকে বাদ দেওয়া যাবে না। নির্দেশের তালিকায় অ্যাডামাস ইন্টারন্যাশনাল, হেরিটেজ, ডিপিএস, মডার্ন হাই, ক্যালকাটা পাবলিক স্কুল সহ একাধিক স্কুল রয়েছে । তবে এই রায় রাজ্যের সব স্কুলের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। কিন্তু তারপরও বহু স্কুল অতিরিক্ত ফি নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছে। শুক্রবার দুর্গাপুরের মহকুমাশাসকের কাছে ফের এই বিষয়ে স্মারকলিপি দেন অভিভাবকদের যৌথ ফোরাম। মিছিলও করেন তাঁরা।

এদিনের মৌন মিছিল শেষে মহকুমাশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দেয় অভিভাবকদের যৌথ ফোরাম। অভিভাবদের যৌথ ফোরামের পক্ষ থেকে মানিক দাস জানান, “টিউশন ফি ছাড়া অন্যান্য ফি প্রত্যাহারের দাবিতে প্রয়োজনে আমরাও আদালতের দ্বারস্থ হব।”

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা