আলিপুর: সাগরের মুড়িগঙ্গা এলাকায় এক উলঙ্গ কিশোরীর ঝুলন্ত দেহ মেলায় প্রচণ্ড উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে৷ মুড়িগঙ্গার শীলপাড়া চৌমাথা নামের এলাকার একটি গাছে তার মৃতদেহ ঝুলতে দেখা যায়৷ স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, মেয়েটিকে ধর্ষণের পর খুন করে গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ এ নিয়ে বিক্ষোভ ও  পথ অবরোধে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা মুড়িগঙ্গা৷ পুলিশের সামনেই দেহ আটকে রেখে স্থানীয়রা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন৷ প্রায় ৩০ মিনিট পুলিশকে ঘিরে চলে থাকে প্রতিবাদ৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে যায় বিশাল পুলিশবাহিনী৷ ব়্যাফ নামানো হয়৷ তারাই মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার সন্ধ্যায় টিউশন পড়তে গিয়ে বেপাত্তা হয়ে যায় স্থানীয় মহেন্দ্রগঞ্জ হাইস্কুলের দশম শ্রেণির ওই মেয়েটি। রাতে খোঁজাখুঁজির পরও সন্ধান না মেলায় থানায় অভিযোগ জানায় তার বাড়ির লোকজন৷ মঙ্গলবার সকালে মুড়িগঙ্গার শীলপাড়া চৌমাথায় একটি গাছের ডালে ওই ছাত্রীর বিবস্ত্র দেহ ঝুলতে দেখেন স্থানীয়রা৷ কিশোরীর হাতে, গলায় ও পায়ে গভীর ক্ষতচিহ্নও ছিল বলে খবর৷ অভিযোগ যে, ধর্ষণের পর খুন করে তাকে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ সকালে এই খবর চাউর হতেই ক্ষোভে ফুঁসতে থাকে গোটা এলাকা৷ এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ৷ ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I