তুরিন: বছরদু’য়েক আগে যখন মাদ্রিদ ছেড়ে তুরিনে পাড়ি দিয়েছিলেন, তখন নাক সিঁটকেছিলেন অনেকেই। তবু ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলেন। আর চ্যালেঞ্জ নিয়ে যে তিনি অসফল, সেকথাও বলা যাবে না। জুভেন্তাসের জার্সি গায়ে দু’টি মরশুমে ইতিমধ্যেই বহু রেকর্ডের পাশে নিজের নাম লিখিয়েছেন। সর্বোচ্চ গোলস্কোরার না হতে পারলেও টানা দ্বিতীয়বারের জন্য সিরি-এ খেতাব জিতে নিয়েছেন সম্প্রতি।

তবে দলবদলের বাজারে পর্তুগিজ মহাতারকার জুভেন্তাসে থাকার বিষয়ে হঠাতই দানা বাঁধছিল সন্দেহ। ফের কোনও চমকের অপেক্ষায় প্রহর গুনছিলেন অনেকে। কিন্তু জল্পনায় জল ঢেলে আকারে-ইঙ্গিতে ক্রিশ্চিয়ানো বুঝিয়ে দিলেন এখনই জুভেন্তাস ছাড়ার পরিকল্পনা নেই তাঁর। বরং আগামী মরশুমে ওল্ড লেডি’র টানা দশমবার খেতাব জয়ের অংশীদার হতে চান তিনি। সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের মাধ্যমে অনুরাগীদের এব্যাপারে নিশ্চিত করলেন আন্তর্জাতিক ফুটবল সার্কিটে সক্রিয় ফুটবলার হিসেবে সর্বাধিক গোলস্কোরার।

দলের সঙ্গে খেতাব জয়ের সেলিব্রেশনে মেতে ওঠার একাধিক ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে রোনাল্ডো লেখেন, ‘ক্লাবের টানা নবমবার খেতাব জয়ের মধ্যে শেষ দু’বারের অংশীদার হতে পেরে ভীষণ খুশি। দেখে সহজ মনে হলেও বিষয়টা খুব সহজ নয়। বছরের পর বছর ধরে তোমার দক্ষতা, পরিশ্রম, দায়বদ্ধতা ইত্যাদি বিষয়গুলো তোমায় আরও পরিশীলিত হতে এবং লক্ষ্যে সফল হতে সহায়তা করে। এবার লক্ষ্য তৃতীয়বার ট্রফি জয়।’ রোনাল্ডোর এই সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট দেখেই অনুরাগীদের কাছে পরিষ্কার হয়ে যায় এখনই তুরিনের ক্লাব ছেড়ে অন্য কোনও ক্লাবে পাড়ি দেওয়ার সম্ভাবনা নেই পর্তুগিজ তারকার।

অভিষেক মরশুমে জুভেন্তাসের জার্সি গায়ে সিরি-এ’তে ২১ গোল করেছিলেন রোনাল্ডো। এবার ট্যালিতে যোগ করেছেন আরও ১০ গোল। তবু সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হতে ব্যর্থ ক্রিশ্চিয়ানো। ল্যাজিও স্ট্রাইকার সিরো ইম্মোবিলের কাছে ৫ গোলে পিছিয়ে পড়েছেন তিনি। রোমার বিরুদ্ধে শনিবার লিগের শেষ ম্যাচে মাঠেও নামেননি তিনি। তবে গোল্ডেন বুটের দুঃখ ভুলে আপাতত চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ক্লাবের ২৪ বছরের খরা কাটানোর লক্ষ্যে রোনাল্ডো। আগামী সপ্তাহেই শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে লিয়ঁর মুখোমুখি তাঁরা। প্রথম লেগে ০-১ গোলে পিছিয়ে পড়া জুভেন্তাসের কাছে এই ম্যাচ টুর্নেমেন্টে টিকে থাকার লড়াই।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও