নয়াদিল্লি: নয়া কৃষি বিলের প্রতিবাদে পাঞ্জাবে কৃষক বিক্ষোভের জেরে ট্রেন পরিষেবা ব্যহত হয়েছে। তিনটি কৃষি বিলই প্রত্যাহারের দাবিতে পাঞ্জাবের কৃষকরা রেল অবরোধ করে। এজন্য উত্তর রেল মোট ৪১টি ট্রেন বাতিল করে। তাছাড়া ১১টি ট্রেনের যাত্রাপথ ছোট করা হয়। এই ট্রেনগুলির বেশিরভাগ দিল্লি–কাটরা শাখার।

কৃষকদের রেল অবরোধের কারণে পণ্যবাহী ট্রেনও ঠিকমতো চলাচল করতে পারেনি। যার জন্য ইতিমধ্যেই বহু লক্ষ টাকার লোকসান হয়েছে বলে জানিয়েছে রেল মন্ত্রক। সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে শুক্রবার কেন্দ্রের সঙ্গে কৃষকদের প্রতিনিধি দলের বৈঠক হলেও, দুপক্ষই তাদের দাবিতে অনড় থাকায় তা ব্যর্থ হয়।

মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং কৃষকদের সঙ্গে কেন্দ্রের বৈঠকে সমাধানের আলো দেখা দিতে পারে বলে মনে করলেও তা হয়নি। দিল্লির বিজ্ঞান ভবনে রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়াল, কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমরের সঙ্গে কৃষকদের প্রতিনিধিরা বৈঠক করেছিল।

সাত ঘণ্টার বৈঠক শেষে কৃষকরা মালগাড়িকে ছাড় দিতে রাজি হলেও যাত্রীবাহী ট্রেনের ব্যাপারে রাজি হয়নি কৃষকেরা। ফলে সমাধান সূত্র অধরাই থেকে যায় বৈঠকে।

প্রসঙ্গত পাঞ্জাব বিধানসভায় সম্প্রতি কৃষি বিলকে নাকচ করে প্রস্তাবও পাস করেছে । কৃষকরা হুঁশিয়ারি দিয়েছে, যতক্ষণ না ওই বিলগুলি প্রত্যাহার করা হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত তাঁদের রেল অবরোধ চলবে। পাশাপাশি অবশ্য এজন্য সাধারণ মানুষের কাছে তাঁদের অসুবিধার জন্য ক্ষমাও চেয়েছেন কৃষকরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।