স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সল্টলেক করুণাময়ী সেন্ট্রাল পার্ক মেলা প্রাঙ্গনে শুরু হচ্ছে কলকাতা বইমেলা৷ যেখানে প্রতিদিন লক্ষাধিক বইপ্রেমী মানুষের সমাগম হবে৷ ফলে বাড়বে যানবাহনের সংখ্যা৷ তাই সল্টলেকের ট্রাফিক ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে৷

বুধবার বিধাননগর কমিশনারেটের ডিসি (হেডকোয়ার্টার) অমিত পি জাভালগি সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, বইমেলা উপলক্ষে ট্রাফিক ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখতে মেলা প্রাঙ্গনের পার্শ্ববর্তী দু’টি বাস স্টান্ড থাকছে৷ একটি করুনাময়ী আন্তর্জাতিক বাস টার্মিনাস অন্যটি ময়ূখ ভবনের কাছে৷ যারা নিজেরা গাড়ি নিয়ে আসবেন, সেই গাড়ি রাখার জন্য বইমেলার উল্টোদিকে পার্কিং লট করা হয়েছে৷ এছাড়া বিধাননগরের অন্যান্য পার্কি জোনেও গাড়ি রাখতে পারবেন৷

এছাড়া বইমেলা উপলক্ষে পশ্চিমবঙ্গ পরিবহন দফতর অতিরিক্ত ১৯০টি বাস চালাবে৷ বইমেলায় পৌঁছনোর জন্য বিশেষ বাসগুলো হাওড়া স্টেশন, শিয়ালদহ স্টেশন, শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড়, বেহালা ও গড়িয়া থেকে আসবে৷ তবে ওই বাসগুলোকে মেলা প্রাঙ্গনের কাছাকাছি যাত্রীদেরকে নামিয়ে দিতে হবে৷ কোনও বাসকেই বইমেলার সামনে দাড়াতে দেওয়া হবে না৷

এবং গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে উন্নয়ন ভবনের পিছন দিকে ৯ নম্বর ট্যাংকের কাছে৷ নিয়ন্ত্রণ করা হবে ভ্যান রিক্সাও৷ রাস্তায় মোতায়েন থাকবে অতিরিক্ত ট্রাফিক পুলিশ৷ বাইপাস থেকে বইমেলায় ঢোকার সমস্ত রাস্তার শুরু থেকেই থাকছে বিধাননগর পুলিশের পথ নির্দেশিকা৷

সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্ক ৪৩ তম বইমেলায় থাকছে ৯ টি প্রবেশ পথ৷ একটি গেট থাকছে সাহিত্যিক রমাপদ চৌধুরীর নামে৷ মোট ৬০০টি স্টল ও ২০০ টি লিটল ম্যাগাজিনের স্টল থাকবে এবারের মেলায়। থাকবে সদ্য প্রয়াত কবি- সাহিত্যিক নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, অতীন বন্দ্যোপাধ্যায় ও দিব্যেন্দু পালিতের নামে চিহ্নিত তিনটি প্যাভিলিয়ন