সঞ্জয় কর্মকার, বর্ধমান (পূর্ব বর্ধমান): দিল্লির মতো বিক্ষোভের আঁচ রাজ্যের শস্যভাণ্ডারেও। সাধারণতন্ত্র দিবসের দিন প্রায় ৪০০ ট্রাকটর নিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের কৃষি আইনের তীব্র প্রতিবাদ হবে। ওই দিন দিল্লিতে হবে বৃহত্তম ট্রাকটর মিছিল। এমনই দাবি কৃষক সভার।

সিপিআইএমের কৃষক সংগঠনটির পূর্ব বর্ধমান জেলা কমিটির আহ্বানে ৪০০ ট্রাকটর নিয়ে মিছিলের কর্মসূচির জেরে ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসনিক মহল সরগরম।

রবিবার বর্ধমানে সারা ভারত কৃষক সভার জেলা কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে এই ঘোষণা করা হয়েছে। বৈঠকে ছিলেন সংগঠনের পূর্ব বর্ধমান জেলার সম্পাদক সৈয়দ হোসেন সহ অন্যান্য বাম কৃষক সংগঠনের নেতৃত্ব।
সাংবাদিক সম্মেলনে জানানো হয়, কেন্দ্রের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে সম মনোভাবাপন্ন প্রায় ১৮টি সংগঠনের উদ্যোগে আগামী ২৬ জানুয়ারি বর্ধমান শহর জুড়ে ট্র্যাক্টর মিছিল হবে।

কৃষক সভার জেলা সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ হোসেন জানান, গোটা ভারতবর্ষ জুড়ে ২৬ জানুয়ারি প্রতিবাদে পথে নামছে কৃষক সংগঠনগুলি। পূর্ব বর্ধমান জেলায় এই প্রতিবাদী আন্দোলনে অংশ নিচ্ছে প্রায় ১৮টি সংগঠন।

তিনি জানিয়েছেন, ওইদিন বর্ধমানের নবাবহাট থেকে উল্লাস পর্যন্ত এই ট্র্যাক্টর মিছিল হবে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি কেন্দ্রের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে জেলা কংগ্রেস এবং জেলা যুব কংগ্রেসের যৌথ উদ্যোগে উল্লাস থেকে নবাবহাট পর্যন্ত ৪০টি ট্র্যাক্টর নিয়ে মিছিল করা হয়।

কৃষক সভার জেলা সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ হোসেন জানিয়েছেন, তৃণমূল কংগ্রেসের সদিচ্ছার অভাব রয়েছে এই আইন নিয়ে প্রকৃত পদক্ষেপ গ্রহণ করার ক্ষেত্রে। তিনি জানিয়েছেন, বামপন্থীদের পক্ষ থেকে তাঁরা দাবি করেছেন যেহেতু কৃষি আইন লাগুর বিষয়টি রাজ্য সরকারের এক্তিয়ার ভুক্ত। তাই রাজ্য সরকার চাইলেই তা এরাজ্যে লাগু না হতে দিতেই পারেন। সেক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের সদিচ্ছা থাকলে বিধানসভায় প্রস্তাব পাশ করুক। তারপর তাঁদের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করা যাবে।

তিনি জানিয়েছেন, আগামী ২ ফেব্রুয়ারি বর্ধমানে আসছেন ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। কেন্দ্র্রের কৃষি আইন সহ কয়েকটি দাবিকে সামনে রেখে বর্ধমানের টাউন হলে তিনি প্রকাশ্য সভাও করবেন।

সৈয়দ হোসেন জানিয়েছেন, একদিকে কেন্দ্রের কৃষি আইনের জেরে বাংলার কৃষকদের আতংক সৃষ্টি হয়েছে তারই মাঝে চলতি সময়ে অস্বাভাবিক হারে আলুর দাম কমতে শুরু করায় আলুচাষীদের মাথায় হাত পড়েছে।

তিনি জানিয়েছেন, রবিবারও বর্ধমান জেলার বিভিন্ন মাঠে ২২০টাকা বস্তা দরে আলু বিক্রি হয়েছে। আগামী দিনে আলুর দাম আরও কমবে বলেও তিনি এদিন দাবি করেন। এখনও পর্যন্ত সরকারের কোনো ভূমিকা তাঁরা দেখতে পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেছেন। সরকারের টনক না নড়ে তাহলে তাঁরা জাতীয় সড়ক অবরোধ করে লাগাতার বিক্ষোভ দেখানোর কর্মসূচি নিয়েছেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে ছিলেন সারা ভারত কৃষক মহাসভার অন্নদাপ্রসাদ ভট্টাচার্য, সংযুক্ত কিষাণ সভার সম্পাদক মহম্মদ আলি মণ্ডল, অগ্রগামী কিষাণ সভার সম্পাদক তপন বাগ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।