বিশেষ প্রতিদিন: মুক্তেশ্বর সবুজে মোড়া এক আসাধারণ প্রাকৃতিক জনপদ। উত্তরাখণ্ডের এই জায়গাটি প্রাকৃতিক শোভা বৈচিত্রের দিক থেকে অতুলনীয়। অত্যন্ত নিবিড়-নির্জন মুক্তেশ্বরে নেই হোটেলের ভিড়। এখানকার মানুষজনও ভীষণ শান্ত। ২,২৮৬ মিটার উঁচু এই জায়গার বেশিরভাগটাই ইন্ডিয়ান ভেটেরিনারি রিসার্চ ইনস্টিটিউডের অন্তর্গত।

এই ইনস্টিটিউড ১০০ বছরের পুরনো ও পশু চিকিৎসা শাস্ত্রের জন্য সুপরিচিত। সংরক্ষিত এলাকা জুড়ে প্রচীন দেওদার বৃক্ষের অরণ্য দেখতে লাগে দারুণ।রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে মুক্তেশ্বর থেকে দেখা যায় দূরের গিরিশিখরগুলি। এর মধ্যে সুস্পষ্ট হয়ে ফুটে ওঠে– নন্দাদেবী, চৌখাম্বা, নন্দাকোট, গৌরী পর্বত ইত্যাদি।

মুক্তেশ্বরের শিবমন্দির এক বিশেষ দ্রষ্টব্য স্থান। মন্দিরটি পাহাড়ি নির্জনতার মঝে অবস্থিত। এই অঞ্চলের একদম কাছেই রয়েছে চাউলি কি জালি। মুক্তেশ্বর পাহাড়ের পশ্চিমাংশটি হঠাৎ করে এখানে শেষ হয়ে গিয়েছে তিন হাজার ফুট নীচের উপত্যকায়। এখানেই একটি বিশেষ জায়গায় প্রাকৃতিক শক্তির প্রভাবে পাথর ক্ষয়ে সৃষ্টি হয়েছে আশ্চর্য ভাস্কর্য। যার পোষাকি নাম চাউলি কি জালি।এখানে দাঁড়িয়ে সূর্যাস্ত দেখার অভিজ্ঞতা চিরস্মরণীয়। সন্ধে নেমে এলে আলো জ্বলে ওঠে রামগড় ও আলমোড়া শহরে। দূর থেকে এই দৃশ্যও দেখার মতো।

মুক্তেশ্বরে বেড়াতে গেলে হিমালয় আর অসামান্য প্রকৃতি দেখেই কেটে যেতে পারে দিন কয়েক। এখানে রয়েছে পি ডব্লু ডি বাংলো। এই বাংলোয় অনেক বিখ্যাত মানুষ রাত্রিবাস করেছেন। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য শিকারি তথা লেখক জিম করবেট। থাকার জন্য রয়েছে, কুমায়ুন মণ্ডল বিকাশ নিগমের, ট্যুরিস্ট রেস্ট হাউস (ফোন- ০৫৯৪২-২৮৬২৬৩), সুপার ডিলাক্স দ্বিসয্যা ঘরের ভাড়া ২,৪৫০ টাকা, রয়াল দ্বিসয্যা ঘরের ভাড়া ২,৯০০ তাকা, সুপার ডিলাক্স চারশয্যা ঘরের ভাড়া ৩,৬৫০ টাকা (এর মধ্যে ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ ও ডিনারের খরচ ধরা আছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.