বিশেষ প্রতিবেদন: পরিচ্ছন্নতা ও সুন্দর্যের জন্য এশিয়ার সবচেয়ে সুন্দর গ্রামের তকমা পেয়েছে মেঘালয়ের মাওলিননং গ্রাম। তকমাই শেষ কথা নয়, এই গ্রামের বাসিন্দারাও যথেষ্ট সুন্দর্য সচেতন। তাঁরা সর্বোদা নিজেদের গ্রামকে পরিচ্ছন্ন রাখতে উদ্যোগী।

এই সুন্দর্যের টানেই এখানে ছুটে যান পর্যটকরা। ২০১৩ সালে মাওলিননং ওয়ার্ল্ড ক্লিনেস্ট ভিলেজের স্বীকৃতি পায়। এখানকার প্রায় সব মানুষই শিক্ষিত। সে জন্যই তাঁরা ময়লা ফেলার জন্য ব্যবহার করেন বাঁশের তৈরি ডাস্টবিন। সেই বর্জ্য থেকেই সার উৎপন্ন হয়– যা চাষের কাজে লাগে।

এখানে রয়েছে রকমারি ফুল। গ্রামটি জুড়ে নানারঙের ফুলের গাছ দেখে আপনি মুগ্ধ হয়ে যাবেন। ফুলগুলোকে উড়ে উড়ে পাহারা দেয় প্রজাপতি। গাছ থেকে ফুল তোলা একেবারেই নিষেধ। গ্রামবাসীদের পোশাক-আশাকও দেখার মতো সুন্দর। এখানে মদ্যপানের অনুমতি নেই। তাই বেড়াতে গেলে এ ব্যাপারে পর্যটকদের সতর্ক থাকা উচিৎ।

গ্রামবাসীরা পরিবেশ সচেতনতা থেকেই প্লাস্টিক ব্যবহার করেন না। মাওলিননং গ্রামটি এই সব কারণেই দেখার মতো। এখানকার মানুষেরা সবুজায়ণের উদ্দেশে নিয়মিত বৃক্ষরোপণ করে থাকেন। এখানে বেড়াতে গেলে অব্যশ্যই ঘুরে আসবেন ‘শেষের কবিতার দেশ’ শিলং থেকে। মাওলিননং থেকে শিলঙের দূরত্ব ৯০ কিলোমিটার। কলকাতা থেকে বিমানে গুয়াহাটি পৌঁছন। সেখান থেকে ভাড়া গাড়িতে মাওলিননং গ্রামে যেতে পারে।

মাওলিননং উচ্চ মানের থাকার ব্যবস্থা নেই। তবে খুব সম্প্রতি গড়ে উঠেছে হোম স্টে। সেখানেই রাত্রিবাস করতে পারেন। অথবা শিলঙে থাকতে পারেন। তাহলে আর দেরি না করে টিকিট কেটেই ফেলুন। এবার আপনার ভ্রমণ গন্তব্য হোক মাওলিননং গ্রাম।