বিশেষ প্রতিবেদন: বেড়াতে যেতে কার না ভাল লাগে! অফিসে দুদিনের ছুটি পেলেই মন ডানা মেলে উড়তে চায় অচেনা দিগন্তের ক্যানভাসে। শীতের ভ্রমণ নিয়ে আলাদা একটা উন্মাদনা কাজ করে ভ্রামণিকদের মধ্যে। কারণ, শীতকালেই সব চেয়ে স্পষ্ট দেখা যায় ল্যান্ডস্কেপ। ভ্রমণ রসিকরা টাই বেড়িয়ে পড়েন জঙ্গলে পাহাড়ে।

উত্তর সিকিমের এক ছোট্ট পাহাড়ি গ্রাম বিচু। ৮৬০০ ফিট উচ্চতায় অবস্থিত সুন্দর গ্রামটি। গ্যাংটক থেকে অল্প সময়ের পৌঁছনো যায় এখানে। এই জায়গাটিই তাহলে হয়ে উঠতে পারে আপনার শীতের ভ্রমণ গন্তব্য। এই গ্রামে বসবাস করেন লেপচা ও ভুটিয়ারা। দুদিনের অবকাশে এই ছোট্ট জায়গাটি আপনার ভালই লাগবে। পাহাড়ি শোভা দেখে মনে আসবে প্রশান্তি।

বিচুতে যেতে হলে পারমিশন নিতে হয় গ্যাংটক থেকে। পাহাড়ি পথে চলার সময় চোখে পড়বে অসংখ্য ঝরনা। শীত কালে এই পাহাড়ি গ্রাম বরফের চাদরে মুড়ে যায়। কাছাকাছির মধ্যে রয়েছে ইউমথাং ভ্যালি, জিরো পয়েন্ট, মাউন্ট কাটাও প্রভৃতি। যদিও শীতকালে এখানে যাওয়াটা চ্যালেঞ্জ। তবে মনে বল থাকলেই অসম্ভব সুন্দর নিসর্গের কাছে পৌঁছনো যায়।

বিচু যেতে হলে শিয়ালদহ থেকে ৮.৩০-এর ১৩১৪৯ কাঞ্চনকন্যা এক্সপ্রেস ধরুন। পরদিন সকালে নিউ জলপাইগুড়ি নামুন। স্টেশনের বাইরেই মিলে যাবে ভাড়ার গাড়ি। দামদর করে গাড়ি ঠিক করে নিন (৪০০০ টাকার মধ্যে) এবং সেই গাড়িতেই পৌঁছে যান গ্যাংটক হয়ে বিচু।

এখানে বেশি মানুষের বসতি নেই। প্রাকৃতিক শোভার কারণেই পর্যটক ভিড় করেন এখানে। সম্প্রতি বিচুতে গড়ে উঠেছে একাধিক হোম স্টে। জনপ্রতি এখানে থাকার খরচ ১৫০০ টাকা। এতে খাবারের দাম ধরা আছে। তাহলে আর দেরই কেন? আজই আপনার ট্যুর প্ল্যান করে ফেলুন।