লন্ডন: ইংলিশ প্রিমিয়র লিগে লিভারপুলের সঙ্গে শীর্ষে ওঠার ইঁদুরদৌড় চলছে ম্যাঞ্চেস্টার সিটির। তৃতীয়স্থানে থাকা টটেনহ্যাম সে তুলনায় পিছিয়ে বেশ কিছুটা। কিন্তু ইউরোপ সেরার টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যান সিটিকে হারিয়ে প্রথম লেগের শেষে অ্যাডভান্টেজ টটেনহ্যাম হটস্পার। ভারতীয় সময় বুধবার রাতে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটে পেপ গুয়ার্দিয়োলার দলকে ১-০ গোলে হারাল মৌরিসিও পোচেত্তিনোর দল।

দু’দলের শেষ তিনবারের সাক্ষাতে তিনবারই হারের স্বাদ পেয়েছিল টটেনহ্যাম। তাই চলতি চ্যাম্পিয়ন্স শেষ আটের লড়াই শুরুর আগে অ্যাওয়ে ম্যাচ হলেও পাল্লা ভারি ছিল গুয়ার্দিয়োলার দলেরই। কিন্তু ইউরোপ সেরার মঞ্চে এদিন শেষ তিনবারের সাক্ষাতকে নিছক পরিসংখ্যান প্রমাণ করে জয় তুলে নিল স্পারসরা।

একাদশে বার্নার্দো সিলভা-দি ব্রুয়েনাকে ছাড়াই টটেনহ্যামের বিরুদ্ধে এদিন মাঠে নামে ম্যান সিটি। তার উপর স্কাই ব্লুজদের হয়ে ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়াল প্রথমার্ধে আর্জেন্তাইন স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরোর পেনাল্টি মিস। যদিও ঘরের মাঠে এদিন আক্রমণে প্রাধান্য বেশি ছিল টটেনহ্যামেরই। তবু ম্যান সিটি দুর্গে শেষ প্রহরী হিসেবে এদিন স্পারসদের সামনে ঢাল হয়ে দাঁড়ান ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক এডেরসন।

প্রথমার্ধে দু-তিনটি দুরন্ত সেভ করে দলকে লড়াইয়ে রাখেন ম্যান সিটি গোলরক্ষক। অন্যদিকে আগুয়েরোর পেনাল্টি মিস ছাড়া প্রথমার্ধে প্রিমিয়র লিগের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে প্রথমার্ধে বলার কিছু নেই। সবমিলিয়ে গোলশূন্য অবস্থাতেই শেষ হয় প্রথম ৪৫ মিনিট।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই স্টার্লিংয়ের দুরন্ত প্রয়াস প্রতিহত করেন টটেনহ্যাম গোলরক্ষক। উত্তেজক ম্যাচে হঠাতই চোট পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় টটেনহ্যাম আক্রমণে প্রধান স্তম্ভ হ্যারি কেনকে। ম্যাচের কর্তৃত্ব এসময় খানিকটা নিজেদের দখলে নিয়ে নেয় সিটি। কিন্তু ঘরের মাঠে ৭৮ মিনিটে ডেডলক খোলে পোচেত্তিনোর দল। ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনের পাস বক্সের মধ্যে নিজের আয়ত্তে নিয়ে প্রায় একক দক্ষতায় বাঁ-পায়ের শটে এডেরসনকে পরাস্ত করেন কোরিয়ান সন-হিউং মিন।

শেষ অবধি ১-০ স্কোরলাইনে ঘরের মাঠে প্রথম লেগ জিতলেও দ্বিতীয় লেগের আগে কেনের চোট চিন্তায় রাখবে টটেনহ্যামকে। অধিনায়কের অনুপস্থিতি প্রিমিয়র লিগে প্রথম চারের শেষ করার প্রশ্নেও বাধা হয়ে উঠতে পারে স্পারসদের জন্য। উল্টোদিকে চতুর্মুকুট খেতাব জয়ের লক্ষ্যে দ্বিতীয় লেগে যে গুয়ার্দিয়োলার দল অল-আউট আক্রমণে যাবে, তা একপ্রকার নিশ্চিত।