ম্যাঞ্চেস্টার: ঘরের মাঠে ম্যাঞ্চেস্টার সিটিকে হারিয়ে ইংলিশ প্রিমিয়র লিগের শীর্ষে চলে এল টটেনহ্যাম হটস্পার। নিউক্যাসলের বিরুদ্ধে চেলসির জয়ের খবর পেয়েই শনিবার মাঠে নেমেছিলেন হ্যারি কেনরা। তাই শীর্ষে যাওয়ার জন্য জয় ছাড়া কোনও গতি ছিল না তাদের। এদিন স্পারসের হয়ে দুই অর্ধে দু’টি গোল করলেন সন হিউং মিন এবং পরিবর্ত জিওভানি লো সেলসো। আর পেপ গুয়ার্দিওলার বিরুদ্ধে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়ে লন্ডনের ক্লাবে কোচিংয়ের বর্ষপূর্তি স্মরণীয় হয়ে রইল জোসে মোরিনহোর।

ঘরের মাঠে এদিন ম্যাচের পঞ্চম মিনিটে এগিয়ে যায় টটেনহ্যাম। তাঙ্গুই এনদোম্বেলের লম্বা পাস ধরে বাঁ-পায়ের শটে বিপক্ষ গোলরক্ষক এডেরসনকে পরাস্ত করেন কোরিয়ান স্ট্রাইকার সন। এরপর জালে বল প্রবেশ করিয়েছিলেন অধিনায়ক হ্যারি কেনও। কিন্তু অফসাইডের কারণে তা বাতিল হয়ে যায়। তবে উলটোদিকে চেষ্টা জারি ছিল ম্যাঞ্চেস্টার সিটির। কিন্তু ফেরান তোরেস, রড্রি হার্নান্দেজদের প্রয়াস হুগো লরিসের বিশ্বস্ত দস্তানায় আটকে যায়। তবুও ২৭ মিনিটে টটেনহ্যামের জালে বল প্রবেশ করান এমেরিক ল্যাপোর্তে। কিন্তু ল্যাপোর্তেকে ফাইনাল পাস বাড়ানোর আগে রদ্রির ক্রস রিসিভ করার সময় তা হাতে লাগিয়ে ফেলেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। তাই প্রাথমিকভাবে সিটির অনুকূলে গোল দেওয়া হলেও ভিএআরের সাহায্য নিয়ে তা বাতিল করেন রেফারি।

এক গোলে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয়ার্ধেও ইতিবাচক সুযোগ তৈরি করতে ব্যর্থ হচ্ছিল টটেনহ্যামের তুলনায় পাঁচ পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে শুরু করা ম্যান সিটি। উলটে ৬৫ মিনিটে মোরিনহোর একটি পরিবর্ত দ্বিতীয় গোল এনে দেয় টটেনহ্যামকে। এনদোম্বেলের পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নেমে ৩৫ সেকেন্ডের মাথায় স্পারসের হয়ে ব্যবধান বাড়ান লো সেলসো। প্রতি-আক্রমণে হ্যারি কেনের ঠিকানা লেখা পাস ধরে এক বিপক্ষ ডিফেন্ডারকে গায়ে নিয়েও ঠান্ডা মাথায় ফিনিশ করেন আর্জেন্তাইন মিডফিল্ডার।

এরপর ফিল ফডেন এবং রহিম স্টার্লিংকে নামিয়ে ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেন পেপ গুয়ার্দিওলা। কিন্তু লাভের লাভ হয়নি। পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে হেডারে রুবেন ডায়াসের একটি প্রয়াস ব্যর্থ করে সিটিকে ব্যবধানও কমাতে দেননি স্পারসের ফরাসি গোলরক্ষক। এই ম্যাচে হেরে আট ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলে ১০ নম্বরে রইল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। উলটোদিকে টানা চার ম্যাচে জয় তুলে ন’ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে চলে এল স্পারস।

এদিন লিগের অন্য ম্যাচে নিউক্যাসেল ইউনাইটেডকে ২-০ গোলে হারিয়েছে চেলসি। প্রথমার্ধে আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে যায় ল্যাম্পার্ডের দল। দ্বিতীয়ার্ধে ব্লুজ’দের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করেন ট্যামি আব্রাহাম। ন’ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে চেলসি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।