কলকাতা: শোভন ও বৈশাখী বিজেপিতে যাওয়ার প্রায় পরের দিন থেকেই শুরু হয়েছে নতুন রাজনৈতিক নাটক। তিনি আবার তৃণমূলে ফিরবেন, এমন জল্পনাও তৈরি হয়েছে বারবার। এবার আরও একবর সেই জল্পনা উস্কে শোভনের কাছে ফোন গেল তৃণমূল থেকে।

সূত্রের খবর, শনিবার শোভন চট্টোপাধ্যায়কে ফোন করেছেন তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতা। তাঁকে আগের মতই কাজ করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে বলে খবর। এক সংবাদমাধ্যমে সেই ফোনের কথা স্বীকার করেছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। কি কথোপকথন হয়েছে, সেটা স্পষ্ট করে না জানালেও প্রাক্তন মেয়রের এই বান্ধবী বলেন, ‘ওরা শোভনবাবুকে মিস করছে।’

গতবছর মন্ত্রিত্ব থেকে ইস্তফা দেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। তারপর থেকে রাজনীতি থেকে দূরে সরে যান কলকাতা পুরসভার প্রাক্তন মেয়র। গত ১৪ অগাস্ট যোগ দেন বিজেপিতে। যোগদানের দিনই দেবশ্রী রায়কে নিয়ে শুরু হয়েছিল ঝামেলা। সে দিনই শোভন স্পষ্ট জানিয়েছিলেন, দেবশ্রীর সঙ্গে এক দলে থাকতে পারবেন না। এরপর দিলীপ ঘোষের বাড়িতেও গিয়েছিলেন দেবশ্রী। যদিও এখনও পর্যন্ত দেবশ্রীর বিজেপিতে যাওয়ার খবর নেই।

এরই মাঝে আবার সোমবার বোমা ফাটান বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। পূর্ব বর্ধমানের একটি সভায় বলেন,”দেবশ্রীকে দলে নেওয়া হলে যদি বৈশাখী দল ছেড়ে চলে যায় তো যাবে। শোভন যায় তো যাবে। তাতে কিছু যায় আসে না।”

এছাড়া, বিজেপির একটি বৈঠক নিয়েও তরজা তুঙ্গে ওঠে। কোনও মূল্যেই আর বইবেন না ‘অসম্মানের’ বোঝা। সেকথাও জানিয়ে দেন তাঁরা দু’জনেই। প্রয়োজনে আনুষ্ঠানিক ভাবে ইস্তফা দিতেও প্রস্তুত— বিজয়বর্গীয়কে শোভন এ কথাও জানিয়েছেন আগেই।

তবে আগামিদিনে শোভন-বৈশাখীর রাজনৈতিক অবস্থান ঠিক কী হবে, সেটা সময়ের উপরেই ছেড়ে দিতে বলছেন বৈশাখী। আর শোভনবাবু যা সিদ্ধান্ত নেবেন, সেটাই তিনি মেনে নেবেন বলেও জানিয়েছেন।