শ্রীনগর: বুধবার সকালেই সাফল্য়৷ ভারতীয় সেনার হাতে নিকেশ হল পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন লস্কর-এ-তৈবার শীর্ষ নেতা৷ জম্মু কাশ্মীরের সোপোরে বুধবার সকালে সেনার সঙ্গে গুলির লড়াই খতম হয় ওই জঙ্গি নেতা৷

সেনা সূত্রে খবর ওই জঙ্গি নেতার নাম আসিফ৷ বুধবার সকাল থেকেই সোপোর জুড়ে তল্লাশি চালাচ্ছিল সেনাবাহিনী৷ বেশ কয়েকদিন ধরেই আসিফের সন্ধানে ছিল তারা৷ এদিন সোপোরে একটি গাড়ি করে যাচ্ছিল আসিফ৷ একটি ক্রসিংয়ে তার গাড়ি আটকায় সেনা৷ কিন্তু আসিফের গাড়ি থামেনি৷ গুলি চালাতে চালাতে পালানোর চেষ্টা করে সে৷

আরও পড়ুন : “মীরার সঙ্গে ১৫ মিনিটও থাকতে পারব ভাবিনি”, স্ত্রী সম্পর্কে এমন কেন বললেন শাহিদ

পালটা জবাব দেয় সেনাবাহিনীও৷ বেশ কিছুক্ষণ চলে সেই গুলির লড়াই৷ পরে নিকেশ করা যায় লস্করের ওই নেতাকে বলে সেনা সূত্রে খবর৷ সোপোরে দিন কয়েক আগেই নিরীহ মানুষের ওপর গুলি চালনা ও সংঘর্ষের ঘটনার মূল মাথা ছিল এই আসিফ৷ এই আহতদের মধ্যে আসমা জান নামে এক শিশুকন্য়াও রয়েছে৷

এদিকে, সোমবার পাকিস্তান ভিত্তিক সন্ত্রাস দল লস্কর-ই-তৈবার চক্র ফাঁস করে জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশ। সোপোর থেকে আট জনকে গ্রেফতার করা হয়। জানা যায়, সন্ত্রাসবাদে সমর্থন জানিয়ে ওই ব্যাক্তিরা কাশ্মীরের সাধারণ মানুষদের ভয় দেখাত ও বিভিন্ন জায়গায় পোস্টার প্রকাশ করার হুমকি দিত। এই ঘটনায় পুলিশ ওই দলের বিরুদ্ধে ভারতীয় দন্ডবিধি অনুযায়ী মামলা দায়ের করে৷

আরও পড়ুন : এনআরসি: চন্দ্রযানের বিজ্ঞানীকেই বিদেশি বানিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, তোপ অধীরের

স্থানীয় পুলিশের প্রাথমিক তদন্ত অনুযায়ী, আইজাজ মীর, ওমর মীর, তওসিফ নাজার, ইমতিয়াজ নাজার, ওমর আকবর, ফইজন লতিফ, দানিশ হাবিব এবং শওকত আহমেদ মীর এই অপরাধের নেপথ্যে রয়েছে। তাঁরা এই পোস্টারগুলি তৈরি করে ও এলাকাতে ছড়িয়ে দিয়ে মানুষের মধ্য়ে আতংক ছড়ানোর চেষ্টা করে৷ এছাড়াও জানা গিয়েছে, লস্করের সঙ্গে যুক্ত এরা। এদের মাথা ছিল এলাকার অন্য এক জঙ্গি সাজ্জাদ মির, যে হায়দার নামে পরিচিত।