নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: ‘নরেন্দ্র মোদী’ থেকে ‘বাঘিনী’ ভোটের মুখে দেশের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের বায়োপিক সিনেমা হলে নিয়ে আসার দৌড় শুরু হয়েছে৷ সঙ্গেই শুরু হয়েছে বিতর্ক৷ সপ্তদশ লোকসভা লোকসভা নির্বাচনে মোদী কিংবা মমতার(বাঘিনী) বায়োপিকের সম্প্রচারের বিরোধিতা করেছে বিরোধী দলগুলি৷ বিরোধী দলগুলির মতে সিনেমা জনমানসে প্রভাব ফেলে৷ ভোটের মুখে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের বায়োপিক ভোটারদের প্রভাবিত করবে৷ লোকসভা ভোটের মাঝেই এই বায়োপিক আসলে নির্বাচন আচরণবিধি ভঙ্গ করছে এই অভিযোগ তুলেই নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছেন সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি৷

সম্প্রতি কোর্টের নির্দেশে আটকে গিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বায়োপির ‘নরেন্দ্র মোদী’র সম্প্রচার৷ সিনেমাটিতে অভিনয় করেছিলেন বলিউড অভিনেতা বিবেক ওযবেরয়৷ একই ভাবে ২০১৬ সালে মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত সিনেমা হল অবধি এসে পৌঁছয়নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জীবন নিয়ে নির্মিত ছবি ‘বাঘিনী’৷ সম্প্রতি ভোটের মাঝেই এই সিনেমা প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু সিপিএমের অভিযোগের পর সেটা সম্ভব নাও হতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ৷

‘বাঘিনী’ ২০১৯ সালের মে মাসে শেষ পর্যন্ত মুক্তি পেতে চলেছে বলে জানিয়েছেন পরিচালক স্বয়ং৷ ছবির গল্প স্ক্রিপ্ট লিখেছেন পিঙ্কি পাল৷ প্রযোজনাও করছেন তিনি নিজে৷ যদিও পরিচালক নেহাল ছবিটিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জীবন নিয়ে তৈরি বলতে রাজি নন, কিন্তু টিজার যেন এই বিষয়কেই বেশি করে সামনে এনে দিচ্ছে৷ পরিচালক না মানলেও বছর তিনেক আগে এই ছবির পোস্টার লঞ্চের সময় ছবির প্রধান চরিত্র রুমা চক্রবর্তী অবশ্য বলেছিলেন , “এই ছবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জীবনের আদলে তৈরি হয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে আমার নিজের গর্ববোধ হচ্ছে।”

সম্প্রতি বাঘিনীর ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে৷ ট্রেলারের ১৪ থেকে ২০ সেকেন্ডে দেখা যাচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আদলে তৈরি হওয়া চরিত্র ইন্দিরা তার এক পরিচিত যুবককে বলছে , “তুমি বিয়ের কথা বলছো তো, কিন্তু আমার জীবনের লক্ষ্যটা যে মানুষের জন্য কিছু করা৷” এছাড়াও বিরোধী নেত্রী হিসেবে মার খেতে খেতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিখ্যাত উক্তি, বিধানসভায় একদিন মাথা উঁচু করে ঢুকবও দেখানো হয়েছে এই ট্রেলারে৷ স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে নেহাল যাই বলুন না কেন, মুখ্যমন্ত্রীর জীবনের আদলে তৈরি হয়েছে ‘বাঘিনী’৷

বাংলা পোর্টাল ‘এই সময়ের’ প্রকাশিত খবর অনুসারে সম্প্রতি ‘বাঘিনীর’ ট্রেলার মুক্তি পাওয়ার পরই সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির দাবি, মুখ্যমন্ত্রীর বায়োপিকের ট্রেলার প্রদর্শন নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করছে৷ সেই কারণেই তাঁরা নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানিয়েছেন৷ তবে শুধু ‘বাধিনীর’ জন্য নয় পাশাপাশি ডায়মন্ডহারবার, আসানসোল, বসিরহাট ও বীরভূমের সিপিআইএম প্রার্থীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত এবং রাজ্য সরকারের অস্থায়ী কর্মীদের নির্বাচনের ব্যবহার না করারও আবেদন জানিয়েছে সিপিএম৷