নয়াদিল্লি: আর্থিক পরিস্থিতি ভাল নয় তাই কর্মী সংখ্যা কমিয়ে অর্ধেক করার কথা ভাবছে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বিএসএনএল৷ একটি বহুল প্রচারিত ইংরেজি দৈনিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তেমনটাই জানিয়েছেন বিএসএনএল চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর প্রভীন কুমার পুরওয়ার। আর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে স্বেচ্ছা অবসর দেওয়ার মাধ্যমে৷

বিএসএনএল কর্তার বক্তব্য,সংস্থার মোট আয়ের ৭৫ শতাংশ খরচ হয় কর্মচারীদের বেতনে৷ রাষ্ট্রায়ত্ত এই টেলিকম সংস্থায় মোট কর্মী সংখ্যা প্রতিযোগী টেলিকম সংস্থার তুলনায় অনেক বেশি। তিনি জানান, কর্মচারীদের জন্য স্বেচ্ছাবসর প্রকল্পের বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে। আর স্বেচ্ছাবসরের মাধ্যমে ৬০,০০০- ৭০,০০০ কর্মী কমানো কথা ভাবা হয়েছে৷ তাই এই ভিআরএস স্কিমটি আকর্ষণীয় করা হচ্ছে যাতে কর্মীরা আকৃষ্ট হয়৷

পাশাপাশি প্রশ্ন উঠছে এত লোক স্বেচ্ছাবসর নিলে পরিষেবা ব্যহত হবে কি না ? যদিও বিএসএনএল কর্তার যুক্তি, সেক্ষেত্রে তেমন কিছু হলে আটসোর্সিং এবং মাসিক চুক্তির ভিত্তিতে লোক নিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হবে ৷ তাছাড়া ৬০,০০০ থেকে ৭০,০০০ কর্মী কমলেও সংস্থায় এক লক্ষ কর্মী থাকবে৷ অতএব পরিবেষা তেমন ব্যহত হবার কথা নয় বলে তিনি দাবি করেন৷

তিনি জানান, আপাতত আয় বাড়ানোই মূল লক্ষ্য বিএসএনএলের তারপরে অগ্রাধিকারে রাখা হচ্ছে খরচ কমানোর। সেক্ষেত্রে খরচ কমাতে অনেক আউটসোর্সড কাজ সংস্থার নিজেদের কর্মী ও অফিসারদের দিয়ে করানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়া বিদ্যুৎ খাতে ২৭০০ কোটি টাকা খরচ হলেও তা থেকে ১৫ শতাংশ কমানো সম্ভব। অন্যদিকে অতিরিক্ত আয়ের জন্য সংস্থার কিছু সম্পত্তি লিজ এবং ও ভাড়া দেওয়া হবে। বিএসএনএলের ৬৮,০০০ টাওয়ার অন্য অপারেটরদের ভাড়া দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে অতিরিক্ত আয়ের কথা ভেবে৷ ফোর-জি পরিষেবা দিতে না পারায় বিএসএনএল মার খাচ্ছে তা মেনে নিয়েছেন বিএসএনএল কর্তা৷