corona virus -1

তেহরান: করোনা আটকাতে ওজোনাইজার তৈরি করেছে ইরান। ইরানের আমির কাবির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এটি তৈরি করেছে বলে জানানো হয়েছে। গোটা বিশ্ব জুড়ে করোনা অতি মহামারীর আকার ধারণ করেছে। ফলে এই ভাইরাসকে আটকাতে অন্যান্য দেশের মতো ইরানকেও সক্রিয় ভাবে কাজ করছে।

এই যন্ত্রের মাধ্যমে বাইরে থেকে কোনও কেমিক্যাল বা রাসায়নিক পদার্থ দিতে হবে না, এটি সরাসরি বায়ু থেকে অক্সিজেন সংগ্রহ করবে এবং তা থেকে ওজোনে পরিণত করবে।

এই ওজোন ব্যবহার করেই পরিবেশকে জীবাণুমুক্ত করতে পারা যাবে। বাসস্থান, অফিস-আদালত, হাসপাতাল, বন্দর এবং টার্মিনালসহ বিভিন্ন স্থানকে জীবাণুমুক্ত করতে ইরান এবার এই প্রযুক্তি ব্যবহার করবে বলে জানা গিয়েছে।

ওজোন অক্সিজেনেরই একটি প্রকারভেদ। তবে এটি বিষাক্ত। ওজোন পরিবেশকে জীবাণুমুক্ত করতে সাহায্য করে।

গত ফেব্রুয়ারিতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর থেকে ইরান এই ভাইরাস মোকাবেলায় বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। শনাক্তকরণ কিট, ভেন্টিলেটর ও মেডিক্যাল রোবট থেকে শুরু করে ব্যাপক সংখ্যায় মাস্ক ও পিপিই তৈরিতে সফল হয়েছে ইরান।

গত কয়েক মাস ধরেই করোনায় রীতিমত আক্রান্ত হয়েছে ইরান। ইতিমধ্যে সে দেশে এই রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ১,৬৯,৪২৫। এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ৮,২০৯জন। আক্রান্ত হয়ে সেরে উঠেছেন ১,৩২,০৩৮ জন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.