মুম্বই: AK-47 বুলেটকে আটকাতে এবার হালকা ওজনের বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট তৈরি করল Bhabha Atomic Research Centre (BARC). গবেষকদের মতে, এই জ্যাকেট অনেক বেশি হালকা এবং তা পরিধানও অনেক আরামদায়ক৷ এই জ্যাকেটের আর্মার প্যানেল তৈরিতে সেরামিক এবং পলিমার ব্যবহার করেছে বার্ক, যা AK-47 বুলেটকে আটকাতে পারবে৷

সংস্থা, নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টরের ব্যবহৃত সেরামিক বোরোন কার্বাইড এবং কার্বন ন্যানো টিউব পলিমার ব্যবহার করেছে এই কাজে৷ এর ফলেই এই জ্যাকেট আরও হালকা এবং কার্যকরী হয়েছে বলে জানানো হয়েছে৷ বার্কে পাঁচ গবেষকের দলকে নেতৃত্ব প্রদানকারী কিংশুক দাশগুপ্ত জানিয়েছেন, বর্তমানে যে বুলেটপ্রুফ জ্যাকেটগুলি রয়েছে, তাতে গার্ড হিসেবে সেরামিকের ব্যবহার হয়েছে, তবে, নতুন ধরণের এই জ্যাকেটটি AK-47-এর মতো বুলেটকেও প্রতিহত করতে সক্ষম৷

পড়ুন: নিজস্ব স্টিলথ ফাইটার তৈরির দিকে এবার নজর দিচ্ছে ভারত

বর্তমানে ব্যবহৃত বুলেটপ্রুফ জ্যাকেটের ওজন ১০কেজি, যার প্যানেলে স্টিল ব্যবহৃত হয়েছে৷ কিন্তু জওয়ানদের স্টিলের বুলেট থেকে রক্ষা করতে তা ব্যর্থ বলে মত বার্ক-এর৷ তবে নতুন এই জ্যাকেটের ওজন ৬.৬ কিলো৷ তিনি আরও জানান, প্রথম সেটের পাঁচটি জ্যাকেট তৈরি সফল না হলেও পরবর্তী ক্ষেত্রে সাফল্য আসে৷ এই জ্যাকেটের ৩০ টি পরীক্ষা হয়েছে৷ তিন ধরণের জ্যাকেট তৈরি করা হয়েছে৷ এগুলির ওজন যথাক্রমে, ৬.৬, ৪ এবং ৩.১ কিলো৷

Central Armed Police Forces (CAPF)-এর উচ্চপদস্থ সেনা আধিকারিক এই জ্যাকেটগুলি পরীক্ষা করেছেন বলে জানা গিয়েছে৷ কিংশুক জানান, CAPF -এর অনুমতি পেলেই এই জ্যাকেটের ব্যবহার শুরু হয়ে যাবে৷ প্রাথমিকভাবে এগুলির মূল্য ৬০,০০০ এবং ৭০,০০০৷ তবে এগুলি বহুল পরিমামে ব্যবহৃত হলে এর দাম কমিয়ে ৩৫,০০০ এবং ৪০,০০০ টাকা করা যেতে পারে জ্যাকেট প্রতি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।