কলম্বো : ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের নয়া রসায়ন শ্রীলঙ্কার। বিশেষ করে করোনা কালে ভারত যেভাবে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কার দিকে, তাতে কলম্বো ও নয়াদিল্লি সম্পর্ক বেশ দৃঢ় হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নয়াদিল্লিকে একেবারেই চটাতে চাইছে না শ্রীলঙ্কা। সেই দিকে নজর রেখেই পার্লামেন্টে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পূর্ব নির্ধারিত ভাষণ বাতিল করল শ্রীলঙ্কা।

কলম্বো গেজেটে প্রকাশিত দার জাভেদের লেখা একটি রিপোর্টে তেমনই বক্তব্য উঠে এসেছে। ‘Sri Lanka avoids clash with India by cancelling Khan’s Parliament speech’ শীর্ষক রিপোর্টে জাভেদ জানাচ্ছেন শ্রীলঙ্কা এখনই ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করার জায়গায় নেই। কারণ করোনা পরিস্থিতিতে রীতিমতো সাহায্য পেয়েছে এই দ্বীপ রাষ্ট্র। ফলে কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জায়গায় নয়াদিল্লির সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করার রাস্তায় হাঁটতে চাইছে না শ্রীলঙ্কা বলে মত জাভেদের।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বক্তব্য সম্প্রচার করা হলে ক্ষুব্ধ হতে পারে নয়াদিল্লি। এই চিন্তা মাথায় রেখেই কলম্বো সম্প্রচারে নিষেধাজ্ঞা টেনেছে। আরও একটি বিষয় সম্প্রতি মাথাচাড়া দিয়েছে শ্রীলঙ্কায়। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের একটা বড় অংশ মুসলিমদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছে। শ্রীলঙ্কা জুড়ে মুসলিম বিরোধী হাওয়া বইছে। মসজিদে পশুবলি দেওয়ার বিরোধিতায় নেমেছেন বৌদ্ধরা। সেই প্রেক্ষিতে যদি ইমরান খান শ্রীলঙ্কা সফরে মুসলিম তাস খেলে হাওয়া বদলাতে চান, তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে।

সব মিলিয়ে শ্রীলঙ্কার এই সিদ্ধান্তে কার্যত মুখ পুড়েছে পাকিস্তানের। উল্লেখ্য, গত ছয় বছর ধরেই এই দ্বীপরাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক মজবুত করার চেষ্টা চালাচ্ছে ভারত। সেই কাজে বেশ সফলও হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। সেই রেশ ধরেই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আড়াই লক্ষ মানুষ যারা কিনা স্বাস্থ্য কর্মী, নিরাপত্তা রক্ষী এবং পুলিশ কর্মী ও বৃদ্ধ, তাঁদের জন্য তিন মিলিয়ন ডোজ টিকা পাঠিয়েছে ভারত।

অন্যদিকে, চিনকে টেক্কা দিতে প্রতিবেশি দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক স্থাপনে উদ্যোগী হয়েছে ভারত। এবার নজর শ্রীলঙ্কার দিকে। জানুয়ারি মাসের শুরুতেই আকাশপথে নজরদারির রাডার সরঞ্জাম শ্রীলঙ্কায় পাঠিয়েছে ভারত বলে বিশেষ সূত্রে খবর। ৩৪১টি ইন্দ্র রাডারের সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে, যার আনুমানিক মূল্য শ্রীলঙ্কান রুপিতে ২০০ মিলিয়ন। ২০১১ সালে শ্রীলঙ্কার বায়ুসেনা ভারতের হাতে ৪টি ইন্দ্র এমকে ১১ নজরদারি রাডার উপহার দেয়। ভারতের পাঠানো এই সরঞ্জাম সেই রাডারগুলির প্রযুক্তি উন্নত করতে ব্যবহার করা হয়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।