স্টাফ রিপোর্টার, বারুইপুর: দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং থানার গোলাবাড়িতে খুন তৃণমূল কর্মী মিজানুর রহমান৷ পায়ে গুলি লেগে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য মুসা শেখ৷ যুব তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা দলীয় সভা লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে বলে অভিযোগ৷ এই ঘটনায় ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল৷

এলাকায় ব্যাপক বোমা বাজি ও তৃণমূল কর্মীদের দেখে লাঠি পেটা করা হয়৷ দুষ্কৃতীরা যুব তৃণমূল আশ্রিত হলেও বিজেপি ও আরএসএসের মদত রয়েছে বলে অভিযোগ শাসক দলের কর্মীদের৷

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ৷ তাদের দেখে উত্তেজিত জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে৷ পুলিশের গাড়ি লক্ষ করে ইঁট ছোঁড়া হয়৷ পরে ঘেরাও করা হয় পুলিশকে৷

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তৃণমূল ও দলের যুব সংগঠনের মধ্যে বিগত বেশ কয়েকদিন ধরেই গোষ্ঠাদ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দিয়েছিল৷ উত্তেজনা ছিল গোলাবাড়ি এলাকায়৷ তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগ পুরো বিষয়টি জানানো হয় পুলিশকে৷ তাও নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে তারা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.