তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়াঃ কয়েক দিনের ব্যবধানে বাঁকুড়ার জঙ্গলমহলে ফের গেরুয়া শিবিরে ভাঙন ধরালো ঘাসফুল শিবির। আজ বৃহস্পতিবার খাতড়া তৃণমূল কার্যালয়ে এসে দলে যোগ দিলেন সুপুর, ডাবরা ও মুড়াগ্রাম এলাকার শতাধিক বিজেপি কর্মী। তাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূলের বাঁকুড়া জেলা কার্যকরী সভাপতি ও খাতড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি জয়ন্ত মিত্র।

এদিন তৃণমূলে যোগ দিয়ে মুড়াগ্রাম গ্রামের শঙ্কর মণ্ডল বলেন, তৃণমূলের প্রথম দিন থেকেই আমরা দলে ছিলাম। লোকসভা ভোটের আগে এক শ্রেণীর তৃণমূল নেতার প্রতি বিতশ্রদ্ধ হয়ে দল ছেড়েছিলাম। এই মুহূর্তে বিজেপির স্বৈরাচারী নীতি যখন আমাদের বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে, তখন একাই লড়ে যাচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর জনমুখী নীতি ও আদর্শকে সম্মান জানিয়ে ফের পুরাণো দলে তারা ফিরে এলেন বলে তিনি জানান।

তৃণমূলের বাঁকুড়া জেলা কার্যকরী সভাপতি ও খাতড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি জয়ন্ত মিত্র বলেন, একদিন যারা ভুল বুঝে তৃণমূল ছেড়েছিলেন, তারা নিজেরাই ভুল বুঝতে পেরে দলে ফিরছেন। সকলকেই স্বাগত। যদিও বিজেপির পক্ষ থেকে তৃণমূলের দাবী অস্বীকার করা হয়েছে। দলের খাতড়া মণ্ডল-২ সভাপতি আদিনাথ দে বলেন, যারা আজ বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছে বলা হচ্ছে তারা কেউই তাদের দলের কর্মী সমর্থক নয়। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূলের টিকিট না পেয়ে নির্দল হিসেবে ভোটে লড়ে। এখন ফের তৃণমূলে তারাই নাম লেখালো। বিজেপি কর্মী সমর্থক তৃণমূলে যোগ দেওয়ার খবর ‘ভিত্তিহীন’ বলেই তিনি দাবী করেন।