স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: ‘গনি’ মিথ প্রায় উধাও৷ খাস তালুকেই ক্রমশ সাইনবোর্ডের পথে কংগ্রেস৷ প্রায় দশ বছর পর মালদহের রতুয়া এক নম্বর পঞ্চায়েত সমিতি দখল করল তৃণমূল কংগ্রেস৷

রতুয়া এক নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির মোট আসন সংখ্যা ৩০টি৷ পঞ্চায়েত ভোটে সেখানে শাসক দলের প্রার্থীরা জেতে ২৬টি আসনে৷ পরে বাকি চারটি আসনের জয়ী প্রার্থীরা দল বদল করে যোগ দেন তৃণমূলে৷ ফলে বর্তমানে বিরোধী শূন্য রতুয়া এক নম্বর পঞ্চায়েত সমিতি৷

দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান৷ পঞ্চায়েত সমিতির দখল পেয়ে খুশি তৃণমূলের কর্মী, সংর্থকরা৷ দলের রতুয়া ব্লকের পরিদর্শক নির্মল কর্মকার বলেন, ‘‘এলাকার তৃণমূলের যুব নেতা মহম্মদ ইয়াসিনের জন্যই এই সাফল্য এসেছে।’’ আর যার জন্য এই জয় সেই তৃণমূল যুব নেতা মহম্মদ ইয়াসিনের দাবি, ‘‘রতুয়া মত পিছিয়ে পড়া এলাকার উন্নয়ন করাই হলো আগামী দিনের লক্ষ্য।’’

পঞ্চায়েত ভোটের ফলাফলেই স্পষ্ট শতাব্দী প্রাচীন কংগ্রেসের সংগঠনের অবস্থা বেহাল৷ নেতারা ব্যস্ত আগামী লোকসভায় তাদের জোটসঙ্গী কে হবে তা নির্ধারণে৷ কর্মীরা দল ছেড়ে যাচ্ছেন হয় তৃণমূলে, নয় গেরুয়া শিবিরে৷ এই পরিস্থিতিতে মালদহ, মুর্শিদাবাদের মত খাস তালুকেও হাত ছাড়া হচ্ছে দলের জেতা একের পর এক গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি৷ যে গুটি কয়েক কর্মী রয়েছেন এখনও তাদের প্রশ্ন, ‘অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই ছাড়া কবে আবার কংগ্রেস লড়বে জেতার জন্য?’