স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ভোটের দিন মুর্শিদাবাদ কেন্দ্রে যা ঘটেছিল সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি বহরমপুর কেন্দ্রে হবে না৷ তৃণমূল সেখানে কোনও অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করলে গণবিক্ষোভের মুখে তাদের পড়তে হবে৷ ভোটগ্রহণের আগেই ঘাসফুল শিবিরকে চরম হুঁশিয়ারি দিলেন বহরমপুরের কংগ্রেস প্রার্থী অধীর চৌধুরী৷

২৩ এপ্রিল, তৃতীয় দফার ভোটে মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস-তৃণমূল সংঘর্ষে এক কংগ্রেস কর্মীর মৃত্যু হয়৷এই ঘটনায় তৃণমূলকে কাঠগড়ায় তুলেছে কংগ্রেস৷২৯ এপ্রিল চতুর্থ দফার ভোটগ্রহণ৷ ওইদিন বহরমপুর কেন্দ্রের ভোট রয়েছে৷ অধীর চৌধুরী বলেন, এখানে তৃণমূল যদি কোনও অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করে তাহলে মানুষ গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলবে৷

তিনি আগেই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলেছিলেন, মুর্শিদাবাদে যদি তৃণমূল একটা বুথ দখল করতে পারে তাহলে আমি কংগ্রেস ছেড়ে দেব। মুর্শিদাবাদের প্রতিটি বুথে নির্বাচন হবে। ক্ষমতা থাকলে লোকসভা নির্বাচনে একটা বুথ দখল করে দেখিয়ে দে। আমি রাজনীতিই ছেড়ে দেব। হুঙ্কার দিয়ে রেখেছেন যে, মুর্শিদাবাদে তৃণমূলের অবস্থা হবে শোলে সিনেমার মত৷ এই জেলায় তৃণমূলকে দিনের বেলায় হ্যারিকেন নিয়ে খুঁজতে হবে৷

নবাবি মুলুক এই জেলা একদা অধীরবাবুর সাজানো বাগান ছিল। গত বিধানসভা নির্বাচনের আগে ও পরে তাঁর বাগানে থাবা বসায় তৃণমূল। একসময় তাঁর হয়ে যাঁরা ময়দানে দাপিয়ে বেড়াতেন, গত পঞ্চায়েত ভোটে তাঁরা তৃণমূলের হয়ে খেলা দেখিয়েছেন। তবে অধীর চৌধুরীও ময়দান ছাড়তে নারাজ। কোণঠাসা নেতা-কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করতে এবার তাঁর স্লোগান ‘তিনে তিন, তৃণমূলকে কবর দিন’৷