নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: অসমে এনআরসির চূড়ান্ত তালিকায় ১৯ লক্ষ মানুষের বাদ পড়ার ঘটনায় বেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এবার তার প্রত্যক্ষ প্রভাব পড়তে চলেছে বাংলার রাস্তায়৷ গোটা রাজ্য জুড়ে এনআরসির প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবস্থানে নামতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস৷

সোমবার বিকেলে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাসভবনে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়৷ সেখানে সিদ্ধান্ত হয়েছে রাজ্য জুড়ে আগামী ৭ ও ৮ই অগাষ্ট বিক্ষোভ দেখাবে তৃণমূল কংগ্রেস৷ সেপ্টেম্বরের ১২ তারিখ উত্তর কলকাতার চিড়িয়া মোড় থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত বিশাল মিছিল করবে তৃণমূল বলে জানা গিয়েছে৷

আরও পড়ুন : পাড়ার ঝামেলা মেটাতে কমিশনার বন্দুক চালাচ্ছেন, বললেন দিলীপ ঘোষ

দলীয় সূত্রে খবর ১২ই সেপ্টেম্বরের মিছিলে উপস্থিত থাকতে পারেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ রাজ্য জুড়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভ মিছিলে এনআরসির কুফল ও বিজেপির রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের কথা তুলে ধরবে তৃণমূল৷ তৃণমূলের দাবি বিজেপি এই রাজ্যেও এনআরসি লাগু করার চেষ্টা করছে৷ যা পুরোপুরি রাজনৈতিক অভিসন্ধিমূলক৷ সেই প্রচেষ্টা কখনই সফল করতে দেবে না রাজ্যের শাসক দল৷

দলের এক প্রবীণ নেতা জানান, তৃণমূল নেতা ও মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায়কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এনআরসি নিয়ে উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিতে তৃণমূলের আক্রমণের ঝাঁঝ বাড়াতে৷

তৃণমূলের লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে অন্যান্য রাজ্যের আঞ্চলিক দলগুলির সঙ্গে যোগাযোগ রাখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে৷ যাতে এনআরসি ইস্যুতে প্রতিবাদে তৃণমূলের শক্তি বৃদ্ধি হয়৷ সেক্ষেত্রে বিভিন্ন রাজ্য থেকে আঞ্চলিক দলগুলি এই প্রতিবাদে সামিল হতে পারে, যে প্রতিবাদের মুখ হতে চলেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

আরও পড়ুন : পুলিশের সামনেই বনধ সমর্থকদের পেটাল তৃণমূল, অভিযোগ বিজেপির

অসমে এনআরসির তালিকা প্রকাশের পর তাতে ১৯ লক্ষ বাসিন্দার নাম বাদ গিয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় জোড়া টুইট করে এই ইস্যুতে বিজেপিকে আক্রমণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটে তিনি লেখেন, “রাজনৈতিক লাভ তোলার চেষ্টা করা হচ্ছিল, তাদের মুখোশ খুলে দিয়েছে এনআরসি বিপর্যয়। দেশকে জবাব দিতে হবে তাদের। দেশ ও সমাজের স্বার্থ পরিহার করে অসৎ উদ্দেশ্যে কাজ করলে এমনটাই ঘটে।” মমতা আরও লিখেছেন, “বাংলাভাষী ভাইবোনদের জন্য খারাপ লাগছে। জাঁতাকলে পড়ে ভুগতে হয়েছে তাঁদের।”

লোকসভা ভোটের আগেই অসমে নাগরিক পঞ্জিকরণের বিরুদ্ধে সবার আগে গলা চড়িয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনিই প্রথমএনআরসির প্রথম তালিকা প্রকাশের পর তার বিরোধিতা করেছিলেন৷ সেই সময় পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের নেতৃত্বে এক সংসদীয় প্রতিনিধিদল অসম পাঠিয়েছিলেন মমতা। কিন্তু সর্বানন্দ সোনোয়াল সরকারের পুলিশ শিলচর বিমানবন্দরের বাইরে পা রাখতে দেয়নি তাদের। এদিন আবারও এনআরসির তালিকা প্রকাশের পর ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ যাওয়ার পরেই টুইট করে বিজেপিকে আক্রমণ করেন তিনি।