ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: লোকসভা ভোটের ফল বেরোতেই ঘাসফুলের জমিতে দাপট বেড়েছে পদ্মের৷ আর দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মাঝে নেপো হয়ে পার্টি অফিসের দই খাচ্ছে সিপিএম৷ গেরুয়া উত্থান রুখতে মঙ্গলবার সিপিএমকে তাদের পার্টি অফিস ফিরিয়ে দিয়েছে তৃণমূল৷ এই ঘটনা ঘটেছে খোদ অনুব্রত মণ্ডলের গড়ে৷

বীরভূমে তৃণমূলকে ভেঙে বাড়ছে বিজেপি। রাজনৈতিক মহলের মতে এই অবস্থায় সিপিএমকে শক্তিশালী করার উদ্যোগ নিয়েছে। এক বছরের বেশি সময় ধরে বোলপুরের রায়পুর-সুপুর পঞ্চায়েতের রজতপুরে সিপিএমের পার্টি অফিস দখল করেছিল তৃণমূল। সেই পার্টি অফিস এখন সিপিএমের হাতে তুলে দিল তৃণমূল। স্থানীয় নেতারাই এদিন পার্টি অফিসটি আনুষ্ঠানিকভাবে সিপিএম কর্মীদের হাতে তুলে দিয়েছে৷

আরও পড়ুন: ভোটে হেরে একুশে ‘লোক দেখানো’ চ্যালেঞ্জ সভাপতি অর্পিতার

তৃণমূলের এই ভূমিকাকে স্বাগত জানিয়েছে স্থানীয় সিপিএম নেতৃত্ব৷ তবে স্থানীয় সিপিএম নেতৃত্বের মতে, সংগঠন বাড়ছে। তাই পার্টি অফিস ফেরত দিতে বাধ্য হয়েছে তৃণমূল। সিপিএমের একাংশ দাবি করছে, গত কয়েক দিনে নানা জেলায় ১৭০টিরও বেশি পার্টি অফিস পুনরুদ্ধার করেছে সিপিএম। যদিও আলিমুদ্দিনে রাজ্য সিপিএমের কাছে আসা তথ্য অনুযায়ী, গোটা ৩০-৩৫ অফিস ফের খুলেছে।

লোকসভা নির্বাচনের ফল এ বার বাংলায় রাজনৈতিক সমীকরণের চেনা ছবি একেবারে ওলট -পালট করে দিয়েছে। তার পরেই শুরু হয়েছে পার্টি অফিসের রং বদলের পালা। যে সব এলাকায় বিজেপি জিতেছে বা ভাল ফল করেছে, সেখানে অটো, ট্যাক্সি বা টোটো ইউনিয়নের তৃণমূল ঝান্ডা নেমে গিয়েছে রাতারাতি। কোথাও ঝান্ডার জায়গা ফাঁকা, আবার কোথাও দ্রুত জায়গা করে নিয়েছে গেরুয়া। তবে এর মাঝে লাভই হচ্ছে লাল ঝান্ডার৷