এগরা: তৃণমূল সরকার যতদিন থাকবে কোনও মতে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি করতে দেওয়া হবে না। পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা-১ ব্লকের পাঁচরোল গ্রাম পঞ্চায়েতের বুড়িগুমটি পাশের ময়দানে ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে এসে দলীয় নেতা-কর্মী সহ সাধারণ মানুষকে এভাবেই আস্বস্ত করলেন স্থানীয় বিধায়ক সমরেশ দাস।

রবিবার বিকেলে বুড়িগুমটিতে আয়োজিত সভায় তিনি বলেন, “এনআরসি নিয়ে আপনারা আতঙ্কিত হবেন না। আমরা আপনাদের আস্বস্ত করছি, বাংলায় কোনওমতেই এনআরসি চালু হবে না।” এনআরসি আতঙ্কে কোনও মানুষ যেন দালালের খপ্পরে না পড়েন সে ব্যাপারেও সজাগ হওয়ার জন্য এদিন আহ্বান জানানো হয়।

তিনি আরও বলেন, “মানুষ গণতান্ত্রিক উৎসবের মাধ্যমে যেভাবে মুখ্যমন্ত্রীর উপর আস্থা রেখেছেন, তার দায়বদ্ধতা নিয়ে আগামীদিনে উন্নয়নের মাধ্যমে ঋণ শোধ করব।” এ দিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন পাঁচরোল অঞ্চল তৃণমূলের সভাপতি অশোক দাস, যুব সভাপতি চন্দন রায়, পাঁচরোল গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান রবীন্দ্রনাথ সোম, ব্লক তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক প্রভুপদ দাস, সাহাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান শান্তিলতা দাস, ব্লকের কর্মাধ্যক্ষ মানসী দে ও আপতার খান, তৃণমূল নেতৃত্ব শেখ মুক্তাজল ও গৌরিশঙ্কর বারিক প্রমুখ।

এ দিন বেশ কয়েকজন অন্য দল থেকে তৃণমূলে যোগ দেন। তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন স্থানীয় বিধায়ক সমরেশ দাস। প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লি থেকে ফিরেই জানিয়েছেন যে এনআরসি হচ্ছে না। আর তা হলে ‘মমতাকে না ছুঁয়ে আপনাদের কিছু করতে পারবে না। তব্বে ভোটার তালিকায় নাম তুলে রাখুন।” তবে প্রধান বিরোধি দল বিজেপি এবিষয়ে বেশ তৎপর তা নিয়ে নিজেদের অবস্থান বেশ কয়েকবার পরিষ্কার করেছে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।