স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পুজো কমিটিকে আয়কর দফতরের নোটিশের প্রতিবাদে ধর্নায় বসল তৃণমূলের শাখা সংগঠন বঙ্গজননী৷ মঙ্গলবার সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে সকাল ১০টা থেকে অবস্থানে বসেছে তারা৷ গত রবিবারই এই কর্মসূচীর কথা ফেসবুকে জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

আয়কর দফতরের তরফে পুজো কমিটিগুলিকে নোটিশ ধরানোর ঘটনার প্রথম দিন থেকেই গর্জে উঠেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি লিখেছিলেন, দুর্গাপুজো জাতীয় উৎসব। তার জন্য তিনি গর্বিত। অথচ পুজো কমিটির উপর আয়করের নামে আর্থিক বোঝা চাপানো হচ্ছে। ক্ষমতায় বসেই তাঁর সরকার গঙ্গাসাগর মেলার তীর্থযাত্রীদের উপর বসানো কর তুলে দিয়েছে।

ক্ষুব্ধ মমতা সোশ্যাল মিডিয়ায় সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, দুর্গাপুজোয় কোনও কর নেওয়া যাবে না৷ এর বিরুদ্ধেই দলের শাখা সংগঠনকে আন্দোলনে সামিল হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন মমতা। দলনেত্রীর নির্দেশে এদিন হিন্দ সিনেমার বিপরীতে অবস্থানে বসেন, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, কাকলি ঘোষ দস্তিদার, শশী পাঁজা, নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়রা। এছাড়াও রয়েছেন পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী তথা কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম। সন্ধ্যে ৬টা পর্যন্ত চলবে এই ধর্না৷

 

ফিরহাদ হাকিম বলেন, “পুজো করার ক্ষেত্রে কোনও কমিটিরই কোনও ব্যক্তিগত স্বার্থ নেই। কেউ এর মাধ্যমে ব্যক্তিগত স্বার্থ চরিতার্থ করতে আসেন না। যদি কেউ ব্যক্তিগত ব্যবসা বৃদ্ধির কথা ভাবতেন, তাহলে তাঁর কাছে আয়কর নোটিশ আসতে পারত। কিন্তু এক্ষেত্রে এটি একেবারেই বেআইনি।” কেন্দ্রকে তাঁর স্পষ্ট বার্তা, ধর্মের ওপর এই আঘাত তাঁরা মেনে নেবেন না৷

কাকলি ঘোষ দস্তিদার বলেন, পুজো কমিটিগুলিকে কেন ডেকে এভাবে হেনস্থা করা হল? দুর্গাপুজো মানেই বাংলার প্রত্যেকটা মানুষের কাছে একটা আবেগ। এর মাধ্যমে বাঙালির আবেগকে আঘাত করা হয়েছে। কেন পুজো কমিটিগুলির সময় নষ্ট করা হয়েছে।

এদিকে, ধর্না নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত ঘোষণার পরেই নড়েচড়ে বসে আয়কর দফতর। সূত্রের খবর অনুযায়ী, এব্যাপারে রিপোর্ট তলব করা হয়েছে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ডিরেক্ট ট্যাক্সেস-এর তরফ থেকে।

তৃণমূলের বক্তব্য, গেরুয়া বাহিনীর থেকে পুজো কমিটিগুলি মুখ ফিরিয়ে নেওয়াতেই এখন কেন্দ্রীয় সংস্থাকে দিয়ে চাপ তৈরি করে তাদের বশ্যতা স্বীকার করানোর চেষ্টা চলছে৷ এদিকে এদিন, পাল্টা ট্যুইট করে বাবুল সু্প্রিয় দাবি করেছেন, দীর্ঘদিন চিটফান্ডের টাকায় পুজো হয়েছে। লাগাম টানতেই কড়া হচ্ছে আয়কর দফতর।