প্রতীতি ঘোষ, ব্যারাকপুর: বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করা এবং পানীয় জলের দাবিতে আন্দোলন করতে গিয়ে টিটাগড় থানার পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হল উত্তর ২৪ পরগনার শিউলি ও মোহনপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার যুব তৃণমূল ব্লক সভাপতি তথা শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য অভিষেক সেনকে ।

শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় দুর্যোগের কারণে দীর্ঘক্ষণ বিদ্যুৎ না আসায় স্থানীয় বাসিন্দাদের উস্কিয়ে শনিবার শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েতের চাপুড়িয়া এলাকায় পথ আবরোধ করে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছিলেন যুব তৃণমূল নেতা অভিষেক সেন । টিটাগড় থানার পুলিশ সেই অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে উত্তেজিত জনতা এবং একই সঙ্গে এক সিভিক ভলান্টিয়ারকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয় । এই ঘটনায় পুলিশ তদন্তে নেমে রবিবার তৃণমূল যুব নেতা তথা শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য অভিষেক সেন সহ মোট ৬ জনকে গ্রেপ্তার করে । ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ ।

যুব তৃণমূল নেতা ও পঞ্চায়েত সদস্য অভিষেক সেনের বিরুদ্ধে শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান অরুণ ঘোষ অভিযোগ করে বলেন, “বিজেপি ও সিপিএমের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন আমাদের দলের পঞ্চায়েত সদস্য অভিষেক সেন। নোয়াপাড়ার বিজেপি বিধায়ক সুনীল সিংয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখে ও। আমাদের পঞ্চায়েতের চাপুরিয়া এলাকায় ও পুলিশের উপর হামলা করেছে । জল ও বিদ্যুৎ সরবরাহ নিয়ে এলাকার বাসিন্দাদের খেপিয়ে তুলেছে । পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে । আমি ওর বিষয় নিয়ে দলের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট করেছি । ও এর আগেও দল বিরোধী নানা কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিল । একটা এতবড় দুর্যোগ গেল । শিউলি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ৭২ টি ল্যাম্প পোস্টের তার ছিঁড়েছে । বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীরা কাজ করছে । সাধারন মানুষকে খেপিয়ে অভিষেক দলীয় নীতির বিরুদ্ধে গিয়ে পথ আবরোধ করিয়ে ছিল । মানুষকে খেপিয়ে ও পুলিশের উপর হামলা করিয়েছে ।”

এদিকে অভিষেক সেনের গ্রেপ্তারের ঘটনায় বিজেপিকে অহেতুক জড়ানো হচ্ছে বলে দাবি করেছেন স্থানীয় নোয়াপাড়া এলাকার বিজেপি বিধায়ক সুনীল সিং । তিনি বলেন, “রাজনৈতিক ভাবে অভিষেকের সঙ্গে আমার কোন যোগ নেই । ওই এলাকায় যে গাছ পড়েছে সেই গাছ বিক্রির বখরা নিয়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলের ফল এটা । এই ঘটনায় আমাকে জড়ানোর কোন মানে নেই ।”

এদিকে ঘটনা সম্পর্কে বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেন, “এই বিপদের সময় যারা গাছ বিক্রি নিয়ে নিজেদের মধ্যে গন্ডগোল করে তাদের কারুর সঙ্গে বিজেপির কোন সম্পর্ক নেই । ওই তৃণমূল নেতাকে বিজেপি দলে নেওয়া হবে না । এটা তৃণমূলের নিজেদের গোষ্ঠী কোন্দলের ঘটনা ।” টিটাগড় থানার পুলিশ এই ঘটনায় তৃণমূল নেতা অভিষেক সেন সহ মোট ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে । তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I