ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার,কলকাতা: আদালতের আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রবীন্দ্র সরোবরে ছট পুজো করলেন একদল ধর্মপ্রাণ মানুষ৷ গেটের তালা ভেঙে তারা ভিতরে ঢোকেন৷ এই ঘটনায় এবার মুখ খুললেন তৃণমূল যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷

তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের টুইটারে লিখেছেন, “ধর্ম কারও একার হতে পারে৷ কিন্তু উৎসব সকলকে নিয়েই হয়৷ এটা ভুললে চলবে না, উৎসবের নামে ভাঙচুর আদতে সেই ধর্মকেই ম্লান করে দেয়৷”

এই বছর রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো পালনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল ‘জাতীয় পরিবেশ আদালত’। ছটপুজোর দু’দিন রবীন্দ্র সরোবরের গেট বন্ধ থাকবে বলেও পোস্টার-ব্যানারে নির্দেশিকা জারি করেছিল কলকাতা পুরসভা বা কেএমডিএ। এই রায়কে মান্যতা দেওয়া হবে বলেও জানায় বিহারী সমাজ। কিন্তু, ছটপুজোর দিন অর্থাৎ শনিবার অন্যরকম ছবি দেখা যায় রবীন্দ্র সরোবর চত্বরে।

ওই দিন সকালে প্রায় তিন থেকে চারশো জন বহিরাগত সরোবরের তিন নম্বর এবং মাদার ডেয়ারি সংলগ্ন গেট ভেঙে ভিতরে ঢুকে পড়েন। অভিযোগ নিরাপত্তারক্ষীদের সরিয়ে দিয়ে গেট ভেঙে ঢুকে পড়েন তাঁরা। প্রতিবাদ করতে গেলে হেনস্থার শিকার হন স্থানীয় প্রাতঃভ্রমণকারীরা। এত কিছু ঘটে গেলেও পুলিশের দেখা পাওয়া যায়নি।

বেলা গড়াতেই ভাঙা গেট দিয়ে বিনা বাধাতেই দলে দলে লোক ঢুকতে শুরু করে। বেলা সাড়ে তিনটে নাগাদ মূল ফটক খুলে দেয় পুলিশ। এরপর থেকেই লাগামহীন হয়ে ওঠে ছট পুজো পালনে আসা জনতা। সরোবরের জলেই শুরু হয়ে যায় স্নান,কাপড় কাচা। যথেচ্ছারে সরোবরের জলেই ফেলে দেওয়া হয় ফুল,সিঁদুর,ঘি। শনিবারের পর একই ছবি দেখা যায় রবিবারেও। সোমবার রবীন্দ্র সরোবরের জলেই ভেসে উঠল মরা মাছ, কচ্ছপ৷ দূষণের পরিমাণ মাপতে সরোবরের জলের নমুনা সংগ্রহ করেছেন পরিবেশকর্মীরা।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV