স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: ভোট শেষ৷ কিন্তু এখনও পাড়ার দেওয়ালে দেওয়ালে রয়ে গিয়েছে দেওয়াল লিখন, ব্যানার, পোস্টার৷ যা দৃশ্যতই দৃশ্যদূষণ ঘটাচ্ছে৷ এবার তাই সেসব মুছে ফেলতে পথে নামলেন খোদ মন্ত্রী৷

ভোট প্রচারের দেওয়াল লিখন মুছতে চুনের বালতি, তুলি হাতে নিজেই পথে নামলেন মন্ত্রী। শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে উদ্যোগ নিলেন অরূপ রায়। খোলা হল শহরের হোর্ডিং, ফেস্টুন। শহরকে ফের আগের জায়গায় ফিরিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিলেন হাওড়ার তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা। ভোটের প্রচারে প্রার্থীর হয়ে যেসব দেওয়াল লিখন হয়েছিল এখন সেসব দেওয়াল মুছে পুনরায় আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেওয়ার কাজ শুরু হল।

শনিবার সকালে এমন ছবি দেখা গেল মধ্য হাওড়ায়। প্রার্থী প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থনে লেখা দেওয়াল এখানকার তৃণমূল কর্মীরা নিজেরাই দায়িত্ব নিয়ে মোছার কাজ শুরু করেন। মন্ত্রী অরূপ রায় শনিবার সকালে মধ্য হাওড়ায় তাঁর বিধানসভা এলাকা থেকেই ভোটের দেওয়াল মোছার কাজে সদলবলে নেমে পড়েন। সঙ্গে ছিলেন সুশোভন চট্টোপাধ্যায়, মৃণাল দাস, জয়দীপ মুখোপাধ্যায় সহ অন্যান্য নেতা কর্মীরা।

চুনের বালতি, তুলি হাতে দেওয়াল মুছে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে অরূপ রায় বলেন, আমাদের দলের কর্মীরা যথেষ্ট দায়িত্বশীল। তাঁরা নিজেরা উদ্যোগ নিয়ে এই কাজ আজ থেকে শুরু করেছেন। শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমরা নির্বাচনের প্রচার শুরুর আগে আমরা দেওয়াল লিখন, হোর্ডিংয়ের জন্য আমরা প্রতিটি বাড়ি থেকে লিখিত অনুমতি নিয়ে থাকি। অনুমতি পেলেই তবেই দেওয়াল লিখন করি। হোর্ডিং, ফেস্টুন লাগাই। নির্বাচন পর্ব মিটে গেলেই আমরা দেওয়াল মুছে দিই। হোর্ডিং, ফেস্টুন খুলে নিই। এবারও আজ থেকে এই কাজ শুরু করলাম। এই নির্দেশ আমরা গোটা জেলাতে বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে পাঠিয়ে দিয়েছি। আজকে আমি নিজেই এলাকা থেকে এই কাজ শুরু করলাম। এরপর সব জায়গায় এই কাজ শুরু হবে। আজকে অনেকগুলি দেওয়াল মোছা হল। হোর্ডিং, ব্যানার খোলা হল। শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখাই মূল উদ্দেশ্য।