তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: বাঁকুড়ায় তৃণমূলের অন্দরে ভাঙন অব্যাহত৷ সদ্য নির্বাচিত সাংসদ সুভাষ সরকারের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিলেন জেলা তৃণমূলের অন্যতম সহ সভাপতি সব্যসাচী রায়, তৃণমূল সমর্থক, আইনজীবি অরুপ শীট সহ চল্লিশ জন তৃণমূল কর্মী।

রবিবার বাঁকুড়া শহরের লালবাজার, ফিডার রোডের একটি বেসরকারি হোটেলে বিজেপিতে যোগদান অনুষ্ঠানটি পালিত হয়৷ এদিনের ঘটনায় স্বভাবতই বেজায় অস্বস্তিতে শাসক শিবির তৃণমূল। তবে জেলাস্তরের কোনও তৃণমূল নেতার প্রতিক্রিয়া মেলেনি এই ঘটনায়৷

এদিন বিজেপিতে যোগ দিয়ে সদ্য তৃণমূল ছেড়ে আসা দলের জেলা সহ সভাপতি সব্যসাচী রায় বলেন, ক্ষমতার লোভে রাজনীতিতে আসিনি। মানুষের জন্য কাজ করাটাই অন্যতম লক্ষ্য। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ স্লোগানকে সামনে রেখে ও তাঁর আদর্শে বিশ্বাস রেখেই বিজেপিতে যোগ দিলাম। এদিন তাঁর সঙ্গে প্রায় ৪০ জন আইএনটিইউসি কর্মী যেমন বিজেপিতে যোগ দিলেন আগামী দিনে আরো অনেকে এই দলে আসবেন বলে তিনি জানান।

বিজেপি যোগ দিয়ে তৃণমূল সমর্থক, আইনজীবি অরুপ শীট বলেন, আরএসএস দিয়ে আমার জীবন শুরু। পরে কংগ্রেসও করেছি। কিন্তু সিপিএম বিরোধী প্রধান মুখ হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তৃণমূলে যোগ দিই। কিন্তু তিনি রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পরিবারতন্ত্র চালুর পাশাপাশি মাফিয়াবাজদের নিয়ে দল চালাতে শুরু করেন। যারা এক সময় সিপিএমের হাতে অত্যাচারিত হয়েছেন তারাই এখন দলে ব্রাত্য। অভিষেক ব্যানার্জীর পাশাপাশি এখন তার দুই ভাই কার্তিক, গণেশ দলে বিশেষ জায়গা পাচ্ছেন। তৃণমূলে থেকে ‘মমতা ব্যানার্জীর পরিবারের চাকরের কাজ’ করে ঐ দলে থাকা যায় না দাবী করে তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদি যেভাবে গরীব মানুষের জন্য কাজ করছেন তা দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে এই দলে যোগ দিলাম।

বিজেপি সাংসদ সুভাষ সরকার বলেন, দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক কর্মী, তৃণমূলের জেলা সহ সভাপতি সব্যসাচী রায় ও তৃণমূল সমর্থক, আইনজীবি অরুপ শীট বিজেপিতে যোগ দিলেন। এদের দলের সদস্য পদ দেওয়া হচ্ছে। আগামী দিনে জেলার ব্লক গুলি থেকে আরো পাঁচশো জন তাদের দলে যোগ দেবেন বলে সুভাষ সরকার দাবী করেন।

এদিন বিজেপিতে যোগদান অনুষ্ঠানে সাংসদ সুভাষ সরকার ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন দলের বাঁকুড়া জেলা সভাপতি বিবেকানন্দ পাত্র।