স্টাফ রিপোর্টার, পুরুলিয়া: রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিন মন্দিরে গিয়ে রামচন্দ্রের পুজো দিলেন তৃণমূল নেতা। যা ঘিরে চরম অস্বস্তিতে পড়েছে দল। আদ্রা শহর তৃণমূলের সভাপতি ধনঞ্জয় চৌবে বুধবার রেল শহর আদ্রার নর্থ এলাকার রাম মন্দিরে গিয়ে পুজো দেন। সঙ্গে ছিলেন তাঁর অনুগামীরাও।

ধনঞ্জয়বাবুর সাফ কথা, “রামচন্দ্র আমাদের দেবতা। এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। বিজেপিই শুধু রামের আরাধনা করবে, তা তো হতে পারে না। আমি এখানে একজন হিন্দু হিসাবে রামচন্দ্রের পুজো করলাম।” দলের জেলা সভাপতি গুরুপদ টুডু বলেন, “বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে বলতে পারব।”

তবে তৃণমূল নেতার এই পুজোকে ইতিবাচক বলে ধরে নিয়েছে পুরুলিয়া জেলা বিজেপি। জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর বলেন, “ওই নেতা বিজেপিতে আসতে চান, তাই আজকের দিনে রামের পুজো করলেন।” রামনাম নিয়ে তৃণমূলের অস্বস্তি এই প্রথম নয়।

সোমবারই জয় শ্রীরাম’ স্লোগান শোনা গিয়েছিল ঘাটালের তৃণমূল বিধায়ক শংকর দোলুইয়ের গলায়। ওই দিন ঘাটালের রাস্তায় বিজেপির পতাকা হাতে দাঁড়িয়ে থাকা বেশ কয়েকজন যুবকের সঙ্গেই দেখা যায় তৃণমূল বিধায়ক শংকর দোলুইকে। রাস্তায় ওই যুবকরা বিজেপি পতাকা হাতে নিয়ে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিচ্ছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সেখানে দাঁড়িয়ে ঘাটালের তৃণমূল বিধায়ক শংকর দোলুইও ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিতে শুরু করেন। শাসকদলের বিধায়ককে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিতে শুনে পাশে থাকা বিজেপির পতাকা হাতে যুবকের দলও প্রবল উৎসাহে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিতে থাকেন।

এরপরই গুঞ্জন শুরু হয় শংকর দোলুই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলেও জেলা রাজনৈতিক মহলে জোর গুঞ্জন শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, “রাম তো ভগবান।

ফলে, জয় শ্রী রাম উচ্চারণে অন্যায় কোথায়?”এদিন একই বক্তব্যও শোনা গেল আদ্রা শহর তৃণমূলের সভাপতি ধনঞ্জয় চৌবের মুখেও। তিনি বিজেপিতে যোগদানের গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়েছেন। সাফ মন্তব্য, তৃণমূলে ছিলাম, আছি এবং আগামিদিনেও থাকব।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা