সৌমেন শীল, ব্যারাকপুর: বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের জনমত সমীক্ষা বিরুদ্ধে রায় দিলেও নিজেদের জয়ের বিষয়ে আশাবাদী ছিল ঘাসফুল শিবির। যদিও তার আগে ভোটগ্রহণ পর্ব চলাকালীন সোশ্যাল মিডিয়ার একাংশের প্রচার ও বাম নেতাদের অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস দেখে কিছুটা হলেও ব্যাকফুটে চলে গিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের নেতারা। এর মধ্যেই এবার ঘটে আরেক গুগলি। নির্বাচনের ফল ঘোষণার আগের দুই সপ্তাহে বাম নেতাদের আত্মবিশ্বাসে হঠাৎ ফাটল দেখা যায়। তা দেখে আবার জয়ের বিষয়ে হঠাৎ চাঙ্গা হয়ে ওঠে মমতা দিদির ভাইয়েরা। জয়ের পর জনগণকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানানোর জন্য রাতারাতি প্রতি কেন্দ্রে তৈরি করা হয়ে যায় বড় বড় ফ্লেক্স। কিন্তু, আগাম ফ্লেক্স তৈরি করায় বিপদেও পড়ে যায় কোনও কোনও এলাকার ভাইবোনেরা। কারণ, ফল বেরতে দেখা যায়, আগাম ফ্লেক্সে জেতানো প্রার্থী হেরে বসে আছেন। দেখা যাক, এমন কাণ্ড কোথায় কোথায় ঘটল।

noapara

রাজ্যের সর্বাপেক্ষা বিতর্কিত কেন্দ্র উত্তর ২৪ পরগণার কামারহাটি কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মদন মিত্র জিতছেন ধরেই ছাপানো হয়েছিল প্রায় ৫০হাজার টাকার ফ্লেক্স। একই রকমভাবে ওই জেলারই নোয়াপাড়া কেন্দ্রের প্রার্থী মঞ্জু বসুর ছবি দিয়েও ফ্লেক্স ছাপিয়েছিলেন নোয়াপাড়ার তৃণমূল কর্মীরা। নোয়াপাড়ার বৌদি মঞ্জু বসুর জন্য ওই কেন্দ্রের ভোটারদের কাছে ধন্যবাদ জানিয়ে লেখা হয়েছিল, “আপনাদের আশীর্বাদে বাংলায় দিদি নোয়াপাড়ায় বৌদি।” এর নীচে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের তরফ থেকে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে লেখা হয়েছে, “নোয়াপাড়া বাসীর কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।” সূত্রের খবর চলতি মাসের ১৯তারিখ ফল ঘোষণার দিনেই ৩৫হাজার টাকার ফ্লেক্স ছাপানো হয়েছিল মঞ্জু বসুর জয়ের জন্য ভোটারদের কাছে কৃতজ্ঞতা স্বীকার করতে। ভোট গণনা শুরুর প্রথমদিকে কামারহাটি কেন্দ্রে এগিয়ে ছিলেন তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্র। দাদার জয় নিশ্চিত ধরেই বরাত চলে গিয়েছিল ফ্লেক্স তৈরির ছাপাখানায়। কামারহাটি পুরসভার ২১নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি এবং কর্মীবৃন্দদের তরফে ‘গণদেবতা’দের অভিনন্দন জানিয়ে লেখা হয়েছিল, “কামারহাটি বিধানসভা থেকে মদন মিত্র কে পুনরায় নির্বাচিত করার জন্য ২১ নং ওয়ার্ডে সহ কামারহাটি বিধানসভার সকল গণদেবতাকে জানাই প্রণাম, শুভেচ্ছা ও আন্তরিক অভিনন্দন।” জেলবন্দী প্রার্থী মদন মিত্রের জয়ের অভিনন্দন জানানোর জন্য ঠিক কতো টাকার ফ্লেক্স ছাপানো হয়েছিল তা পরিষ্কার করে না জানা যায়নি। তবে টাকার অঙ্কটা নোয়াপাড়ার প্রার্থী মঞ্জু বসুর কৃতজ্ঞতার জন্য ছাপানো ফ্লেক্সের থেকে অনেকটাই বেশি। জানা গিয়েছে, দুই কেন্দ্রেরই কেউ ছাপাখানা থেকে ফ্লেক্স নিয়ে যাননি। ফ্লেক্স নির্মাতাদের অবশ্য সম্পূর্ণ টাকা মিটিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন নোয়াপাড়া কেন্দ্রের এক তৃণমূল কর্মী।

আরও পড়ুন:-

তৃণমূলী পুরপ্রধানেরই পদত্যাগ দাবি মদন অনুগামীদের

ঘন ঘন বমি করছেন অসুস্থ মদন মিত্র

ক্ষমতায় ফেরা শুধু সময়ের অপেক্ষা, আত্মবিশ্বাসী মদন

বাবা জেলে! সকাল থেকে মদনের ‘কন্ট্রোল রুম’ সামলালেন ‘সুপুত্তুররা’

দুর্নীতির প্রশ্নে মদনকে ফুলস্টপ কামারহাটির

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ