ছবি: প্রতীকী

স্টাফ রিপোর্টার, বারুইপুর: আদি বনাম নব্যের বিবাদ৷ তৃণমূলের গোষ্টীকোন্দল ঘিরে বৃহস্পতিবার রাতে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় দক্ষিণ ২৪ পরগণার বারুইপুর থানার কুমোরহাট এলাকা৷ দুই ব্যবসায়ীর বিবাদ মোটানো নিয়ে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ে ধপধপি ১ নম্বর পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রুহুল আমিন গাজী ও আশরাফ খান৷

অভিযোগ এলাকার এই দুই নেতা ও তাদের অনুগামীরা থানার মধ্যে ঢুকেও মারামারি করে৷ পরে রুহুল আমিন গাজীকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

আরও পড়ুন: পুত্রবধূকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার শ্বশুর

দীর্ঘদিন ধরেই বারুইপুরের ধপধপি এলাকায় শাসক দলের দুই গোষ্ঠীর বিবাদ রয়েছে৷ গন্ডগোল প্রায় রোজকার ঘটনা৷ তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে অত্যন্ত বিরক্ত মানুষ৷ বৃহস্পতিবার রাতে এলাকারই দুই ব্যবসায়ীর ঝামেলা মেটানোকে কেন্দ্র করে রুহুল গাজি ও আশরাফ খান গন্ডগোলে জড়িয়ে পড়ে৷

তাদের অনুগামীদের মধ্যেও চলে ব্যাপক মারধর৷ অভিযোগ, ব্যবসায়ীদের বিবাদ মেটানোর সময় আশরাফ আলির অনুগামীদের উপর লাঠি, রড এমনকি ঠান্ডা পানীয়ের কাচের বোতল নিয়ে চড়াও হয় ধপধপি ১ নম্বর পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রুহুল আমিন গাজী ও তার দলবল৷

আরও পড়ুন: শরীরের বিভিন্ন কালো দাগ দূর করুন এই ঘরোয়া উপায়

এই ঘটনায় আশরাফ খান সহ সাতজন তৃণমূল কর্মী গুরুতর জখম হন৷ এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে৷

গন্ডগোলের খবর পেয়েই কুমোরহাটে পৌঁছায় পুলিশ৷ এলাকায় অশান্তি ছড়ানোর অভিযোগে ধপধপি ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রুহুল আমিন গাজীকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

আরও পড়ুন: বলিউডের চার হেভিওয়েট গায়কের গান থাকবে ‘হইচই আনলিমিটেডে’

দলের মধ্যেকার এই ঝামেলা নিয়ে মুখ খুলতে চাননি দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব৷ গোষ্ঠীকোন্দল মিটিয়ে একযোগে সংগঠনের কাজে জোর দিতে নির্দেশ দিয়েছেন দলনেত্রী৷ কিন্তু সেই নির্দেশ যে সব সময় নিচু তলার কর্মীদের মধ্যে পৌঁছাচ্ছেনা কুমোরহাটের ঘটনাই তার প্রমাণ৷

আরও পড়ুন: জাপানি এনসেফেলাইটিসে মৃত্যু বৃদ্ধার