কলকাতা: ভোট প্রচারে গিয়ে বারবার রাজ্যে ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৪২টি আসনেই তৃণমূলের জয়ের দাবি তুলেছিলেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয়, বিজেপি বাংলায় একটা আসনও পাবে না বলে দাবি করেছিলেন। কিন্তু গত ২১ শে মে ফলপ্রকাশের পর দেখা যায় অভাবনীয় ভাবে বাংলায় বিজেপি ঝড়। এক ধাক্কায় ২ থেকে ১৮টি আসনে পৌঁছে গিয়েছে বঙ্গ বিজেপি। রাজ্যে এভাবে বিজেপির বাড়বাড়ন্তে যথেষ্ট চিন্তার ভাঁজ পড়েছে খোদ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কপালে।

একদিকে বাংলায় গেরুয়া শিবিরের উত্থান অন্যদিকে ক্রমশ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের সংখ্যা বাড়ছে। আর সেই তালিকায় শাসকদলের বিধায়ক থেকে সাধারণ নেতা-কর্মীরা তো রয়েছেই।

ইতিমধ্যে বিজেপির হাতে এসেছে ভাটপাড়া পুরসভা। বিজেপির হাতে আসতে চলেছে আরও তিন-তিনটি পুরসভা। ইতিমধ্যে সেই সমস্ত পুরসভার কাউন্সিলররা বিজেপিতে যোগদান করেছে। যদিও মুকুল দায় দাবি করেছেন, শুধু দুই কিংবা তিনটে নয়, আগামী কয়েকমাসের মধ্যেই বহু পুরসভাই তাঁদের হাতে চলে আসবে। শুধু তাই নয়, একাধিক তৃণমূল পঞ্চায়েতও বিজেপির হাতে আসবে বলে দাবি করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব। যদিও ইতিমধ্যে একাধিক পঞ্চায়েতের দখল নিয়েছে বিজেপি। কিন্তু এবার খোদ কেষ্টার গড়ে ভাঙন ধরাল বিজেপি। খোদ বীরভূমের ‘সেনাধিপতি’ অনুব্রত মন্ডলের গড়ে এভাবে তৃণমূলের পঞ্চায়েত ছিনিয়ে নেওয়াতে যথেষ্ট চিন্তার ভাঁজ পড়েছে শাসকদলের নেতাদের মধ্যে।

আজ শনিবার বীরভূমের একটি গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূলের হাত থেকে ছিনিয়ে নেয় বিজেপি। রামপুরহাট ১ ব্লকের ডাবুক গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান, উপপ্রধান সহ তৃণমূলের পাঁচ সদস্যই এদিন বিজেপিতে যোগ দেন। গত পঞ্চায়েত ভোটে ১৩ আসনের ওই পঞ্চায়েতে ১০টি আসনে জয়ী হয়েছিল তৃণমূল। দু’টিতে বিজেপি ও একটি আসনে জয় পায় সিপিএম। পঞ্চায়েতের একমাত্র সিপিএম সদস্য আগেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। এদিন তৃণমূলের পাঁচ সদস্য বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় ওই পঞ্চায়েতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে গেল তারা। শুধু তাই নয়, পঞ্চায়েতও গেল বিজেপির দখলে।

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন আগে অনুব্রত মন্ডলের খাস তালুকে ভাঙন ধরিয়েছে বিজেপি। প্রায় কয়েক হাজার তৃণমূল নেতা-কর্মী বিজেপিতে যোগ দেন। উল্লেখ্য, গত লোকসভা আসনে বীরভূমে যথেষ্ট ভালো ফল করেছে বিজেপি। এই লোকসভা আসনে শতাব্দী রায় জিলতেও যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছে। ফলাফল ঘোষণায় বিজেপির প্রার্থীর কাছে একাধিকবার পিছিয়ে পড়লেও শেষ হাসি হাসেন শতাব্দীই। কিন্তু খোদ অনুব্রত মন্ডলের ওয়ার্ডে পিছিয়ে তৃণমূল। এই অবস্থায় এবার তৃণমূলের ঘরে ভাঙন ধরাতে শুরু করল বিজেপি।