স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: এলাকায় অসামাজিক কাজকর্ম বন্ধ করাকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার বাঁধল উত্তর ২৪ পরগনার কামারহাটিতে৷ ভাঙচুর করা হল এলাকার একটি ক্লাবে৷ দুষ্কৃতীদের মারে জখম হলেন ক্লাবের সম্পাদক সন্তোষ সিং৷

অভিযোগ, কামারহাটি পুরসভার এক তৃণমূল কংগ্রেস কাউন্সিলরের মদতেই এই ঘটনা ঘটেছে৷ যদিও তৃণমূলের তরফে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে৷ পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷

আরও পড়ুন: রাতভর ঘরের টিনে জড়িয়ে রইল বিষধর সাপ

উত্তর ২৪ পরগনার বেলঘরিয়া টেক্সমেকো কারখানা সংলগ্ন চার নম্বর রেলগেট৷ ওই এলাকা সংলগ্ন অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে চলছে অসামাজিক কাজকর্ম৷ সেই অসামাজিক কাজকর্ম বন্ধ করা নিয়ে স্থানীয় একটি ক্লাবে সোমবার বৈঠক শুরু হয়৷ বৈঠকে ক্লাবের সদস্যরা ছাড়াও স্থানীয় বাসিন্দারাও উপস্থিত ছিলেন৷

অভিযোগ, সেই সময় অভয় তিওয়ারি, সঞ্জীব চৌবের দলবল সেই ক্লাবে গিয়ে স্থানীয় বাসিন্দা ও অভিযোগকারীদের হুমকি দিতে শুরু করে। প্রতিবাদ করতে এগিয়ে আসেন ওই ক্লাবের সম্পাদক সন্তোষ সিং। সেখানেই তাঁকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ৷ দুষ্কৃতীদের মারে তাঁর মাথা ফেটে যায়৷

আরও পড়ুন: ইব্রা’র হ্যাটট্রিক, রক্তাক্ত রুনি

সন্তোষবাবুর অভিযোগ, ‘‘হামলকারীরা আমাকে খুনের চক্রান্ত করেছিল। ওরা ক্লাবে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে।’’ তাঁর দাবি, ওই দুষ্কৃতীরা স্থানীয় এক তৃণমূল কাউন্সিলরের ছত্রছায়া রয়েছে৷ তারাও এলাকায় নিজেদের তৃণমূল কর্মী বলে পরিচয় দেয়৷ জখম ক্লাব সম্পাদক বেলঘরিয়া থানায় সোমবার সকালে অভিযুক্ত ওই তৃণমূল কর্মীদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

বেলঘরিয়া ফ্রেন্ডস ক্লাবের সহ-সভাপতি সঞ্জীব সিং বলেন, ‘‘হামলাকারীরা প্রত্যেকে তৃণমূল কর্মী এবং স্থানীয় কাউন্সিলরের ডানহাত, বাঁহাত। ওদের বক্তব্য এলাকায় সমস্যা হলে পাড়ার মালিক ওরা, সমস্যাও ওরাই মেটাবে। ক্লাবে কোনও আলোচনা হবে না। ক্লাবে কেন মিটিং হচ্ছে সেটা নিয়েই ওরা ক্লাবে হামলা ও ভাঙচুর করল।’’

আরও পড়ুন: ৩৬ মহিলা, শিশুকে অপহরণ করেছে আইএস: রিপোর্ট

স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব তাদের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে। ক্যামেরার সামনে মুখ না খুললেও স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের বক্তব্য, ক্লাব সদস্যদের নিজেদের মিটিংয়ের মধ্যেই অন্তর্দলীয় কোন্দলে ওই ঘটনা ঘটেছে। তৃণমূল কর্মীদের নাম দিয়ে মিথ্যা বদনাম করা হচ্ছে।