স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: এই বিশৃঙ্খলা, অরাজকতার জবাব মানুষ তৃণমূলকে ভোটবাক্সে দেবে৷ কলেজ স্ট্রিট চত্বরে তৃণমূল-বিজেপির সংঘর্ষ নিয়ে এই মন্তব্য করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ৷

মঙ্গলবার অমিত শাহের রোড শো কলেজ স্ট্রিটে পৌঁছনোর আগেই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে কালোপতাকা নিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সমর্থকেরা। ‘অমিত শাহ গো ব্যাক’ স্লোগান দেয় তারা৷সেই কালো পতাকা যাতে দেখতে না পান অমিত শাহ সেই জন্য বড় ব্যানার দিয়ে রাস্তার এক পাশ ঢেকে দেওয়ার চেষ্টা করেন বিজেপি কর্মী সমর্থকেরা। এরপরই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে৷ এর পর বিদ্যাসাগর কলেজেও অমিত শাহের রোড শো ঘিরে তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়। টিএমসিপি এবং বিজেপি কর্মী সমর্থকদের সংঘর্ষ ঘিরে উত্তপ্ত পরিস্থিতি।

ইটবৃষ্টি, লাঠি, বাঁশ নিয়ে চলছে সংঘর্ষ। সংঘর্ষ চলাকালীন আগুন জ্বেলে দেওয়া হয়েছে কলেজের সামনে। পোড়ানো হয়েছে বেশ কয়েকটি বাইক। উত্তেজনা দেখে গাড়ির ভিতরে নেমে গিয়েছেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ-ও।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিদ্যাসাগর কলেজের ভিতর থেকে মিছিলের দিকে ইট ছোড়া হয়। মাথা ফেটে গিয়েছে এক বিজেপি কর্মীর।অন্য দিকে মিছিল থেকে বিজেপি কর্মীরা কলেজের ভিতরে ঢুকে ভাঙচুর চালিয়েছেন বলেও অভিযোগ। বিদ্যাসাগর কলেজে ভেঙে দেওয়া হয়েছে বিদ্যাসাগরের মূর্তি। ভেঙে দেওয়া হয়েছে কলেজের গেট, আসবাব। নষ্ট করা হয়েছে কলেজের নথিপত্রও।

ন্ডগোল প্রসঙ্গে অমিত শাহ বললেন, ‘‘আচমকা তৃণমূলের কিছু গুন্ডা আমাদের রোড শোয়ে হামলা চালায়। আমাদের কর্মকর্তাদের সঙ্গে হাতাহাতি হয়। আমি মনে করি বাংলার এই বিশৃঙ্খলা, অরাজকতার জবাব মানুষ ভোটবাক্সে দেবেন। আগের বারের চেয়েও বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় আসবে। আমার রোড শো শেষ করতে পারিনি। বিবেকানন্দের মূর্তিতে মালাও দিতে পারিনি।’’