স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: লক্ষ্য ভোটারের মন জয়, লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে নতুনত্ব আনতে সব দলই মরিয়া৷ সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করার পর থেকেই যাদবপুর এবং বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্র আলোচনায় রয়েছে৷ কারণ বসিরহাটের তৃণমূল প্রার্থী অভিনেত্রী নুসরত জাহান৷ যাদবপুরে তৃণমূলের হয়ে লড়বেন আরেক অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী৷ রাজনীতিতে নবাগত মিমিকে জিতিয়ে আনার দায়িত্ব পড়েছে মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের কাঁধে৷ তার প্রস্তুতিও চলছে জোর কদমে৷ যাদবপুরে প্রচারে মিমির জন্য স্পেশাল গাড়ি সাজাল তৃণমূল৷

যাদবপুরে তৃণমূলের পক্ষ থেকে মিমি চক্রবর্তীর প্রচারের জন্য একটি সুজুকি গাড়ি সাজানো হয়েছে সবুজ ফ্লেক্সে৷ গাড়িটিতে আঁকা হয়েছে তৃণমূলের ঘাষফুলের লোগো৷ সামনে ও পিছনে মিমির বড় ছবি দিয়ে লেখা হয়েছে মিমি চক্রবর্তীকে ভোট দেওয়ার কথা৷ প্রচারে অভিনবত্ব আনতেই মন্ত্রীর পরামর্শে এই বিশেষ আয়োজন বলে সূত্রের খবর৷ এভাবেই সাধারণ মানুষের দৃষ্টি আর্কষণে উদ্যোগী তৃণমূল৷

অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী ও নুসরত জাহানকে লোকসভা নির্বাচনে যাদবপুর ও বসিরহাট থেকে প্রার্থী করে চমক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কিন্তু রাজনীতির বাইরে একেবারে আনকোরা এই দুই অভিনেত্রীকে সরাসরি লোকসভা ভোটের প্রার্থী করায় সোশ্যাল মিডিয়াতে ট্রোলড হতে হয়েছে মিমি ও নুসরত-কে নিয়ে৷ সেই পালে হাওয়া লাগিয়েছে রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ মিমির কিছু মন্তব্যও৷

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী ঘোষণা হওয়ার পর এক বাংলা দৈনিক-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মিমি বলেন, ‘‘রাজনীতির আঙিনায় আমি একেবারে নতুন৷ সবকিছু ঠিকঠাক জানিনা৷ এখন শিখছি৷ আমাকে সাহায্য করার জন্য অনেককে সঙ্গে দিয়েছেন দিদি৷ অরূপ দা, শুভাশিষ দা আছে৷ খুব হেল্প করছে এবার শুধু মাঠে নামার অপেক্ষা৷ নুসরত তো সব ডায়রিতে লিখে রাখছে৷ জিজ্ঞেস করলে বলে, চিন্তা করিস না সব বুঝিয়ে দেবো৷’’ মিমির বক্তব্যের এই শেষ অংশটুকু নিয়েই ট্রোল শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে৷

একাধিক ফেসবুক ব্যবহারকারী মিমির এই বক্তব্যকে উদ্ধৃত করে লিখেছেন৷ ‘‘ সব ডায়রিতে লিখে রাখছে ওরা৷ এসব দেখে মনে হচ্ছে লোকসভা ভোটের লড়াই নয় উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছেন মিমি এবং নুসরত৷’’ স্বাভাবিকভাবেই মন্ত্রী অরূপের তত্ত্বাবধানে প্রচারের জৌলুস এনে মিমিকে লোকসভা ভোট বৈতরণী পার করাতে চাইছে তৃণমূল এমনটাই মত বিশেষজ্ঞদের একাংশের৷