স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: অনুব্রত মণ্ডলের গড়ে বিস্ফোরক অভিযোগ কংগ্রেসের৷ লোকসভা ভোটের পর সেসব পঞ্চায়েত এলাকায় তৃণমূল হেরেছে সেসব জায়গায় সমস্ত সরকারি পরিষেবা বন্ধ করে দিয়েছে তৃণমূলের কর্মীরা৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়ে এমনই অভিযোগ জানালেন বীরভূমের হাঁসনের কংগ্রেস বিধায়ক মিল্টন রশিদ৷

ভোটের রেজাল্ট বেরোনোর পর থেকেই বিজেপির বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ করছে শাসক দল তৃণমূল৷ ঘাসফুলের দলীয় কার্যালয় দখল থেকে তাদের কর্মীদের মারধর, বিজেপির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ করছে তৃণমূল৷এবার তাদের বিরুদ্ধেই ভোট পরবর্তী অশান্তি ছড়ানোর অভিযোগ উঠল৷ কংগ্রেস বিধায়ক মিল্টন রশিদের অভিযোগ, বীরভূমে যেসমস্ত পঞ্চায়েত, জেলা পরিষদে তৃণমূল হেরে গিয়েছে সেখানে পানীয় জলের লাইন কেটে দেওয়া হয়েছে৷টিউবওয়েল ভেঙে দেওয়া হয়েছে৷ এই তীব্র গরমে মানুষ জলের জন্য হাঁসফাঁস করছেন৷কেউ প্রয়োজনে সরকারি কোনও সার্টিফিকেট পাচ্ছেন না৷

মিল্টন বলেন, “বীরভূমের মানুষকে তো বেঁচে থাকতে হবে৷কিন্তু অনেকেই এই গরমে খাবার জলটুকু পাচ্ছেন না৷ বিজেপি বেশি ভোট পেয়েছে বলে সাধারণ মানুষ কেন সমস্ত ন্যায্য সরকারি পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হবেন? এখন তো মনে হচ্ছে, বিজেপির থেকে তৃণমূল বেশি অশান্তি পাকাচ্ছে৷”

মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দেওয়ার পরও যদি কোনও কাজ না হয় তাহলে বীরভূমে কংগ্রেস রাস্তায় নেমে আন্দোলন করবেন বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মিল্টন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I