হলদিয়া: অবশেষে পদত্যাগ করলেন হলদিয়া পুরসভার পুর পারিষদ স্বপন নস্কর৷ ভোটের সময় দলবিরোধী কাজের অভিযোগে দলের অন্দরেই একঘরে হয়ে ছিলেন তিনি৷ টানা তিন দিন৷ হলদিয়া পুরসভাতেও তাঁর ঢোকা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল৷ তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছিল তাঁর নিজস্ব অফিসঘরে৷

বিধানসভা নির্বাচনে সারা রাজ্যে সবুজ ঝড়ের মধ্যেও কালক্রমে শুভেন্দু অধিকারীর নিজস্ব বলয়ের অন্তর্গত হলদিয়ার রঙ বদলে ফের হয়ে গিয়েছিল লাল৷ ‘‘মধুভাণ্ড’ বন্দর হলদিয়ার মোড়ল কে হবেন, এই লড়াইতে শেষ পর্যন্ত তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মধুরিমা মণ্ডলকে ২০ হাজারেরও বেশি ভোটে পরাজিত করে জেতেন সিপিএম প্রার্থী তাপসী মণ্ডল৷ সূত্রের খবর, এই পরাজয়ের পর থেকেই সরষের মধ্যেকার ভূত খুঁজতে শুরু করে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব৷ দলীয় ঝাড়ফুঁকে নাম ভেসে ওঠে স্বপন নস্করের৷ হলদিয়া পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর স্বপন, ছিলেন পুর পারিষদও৷ দলীয় তদন্তের শেষে অভিযোগ ওঠে, বিধানসভা ভোটের সময় দলবিরোধী কাজ করেছেন স্বপন৷ প্রথমে শো-কজ করা হয় তাঁকে৷ পরে পুরসভায় তাঁর নিজস্ব ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়৷ দলের আর সমস্ত দায়িত্ব থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয় স্বপন নস্করকে৷ শেষ পর্যন্ত নিরুপায় হয়ে বুধবার পুরভবনের রিসেপশনে নিজের পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে বেরিয়ে যান স্বপন নস্কর৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.