বালুরঘাট: জেলাপরিষদের কর্তৃত্ব নিজেদের দখলে রাখতে মরিয়া তৃণমূল। বিপ্লব মিত্র তথা তাঁর অনুগামীদের দিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে সোমবার দলীয় ১১জন সদস্যকে নিয়ে জেলাপরিষদের যশোধা ভবনে বৈঠক করলেন তৃণমূল সভাপতি অর্পিতা ঘোষ। প্রশাসনিক কাজে দলের প্রভাব টিকিয়ে রাখতে এদিনের বৈঠকে প্রবীর রায়কে জেলাপরিষদের দলনেতা মনোনীতও করানতিনি।

গত ২৪ জুন, ১৮ আসন বিশিষ্ট দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাপরিষদের সভাধিপতি সহ দশ সদস্য বিজেপিতে যোগ দেন। পরবর্তীতে সেখান থেকে ৩জন যথারীতি ফের তৃণমূলে ফিরে আসলেও সভাধিপতি লিপিকা রায় সহ সাত সদস্য এখনও বিজেপিতেই রয়ে যান। পঞ্চায়েত আইন অনুসারে বর্তমান পরিস্থিতি অনুযায়ী কর্তৃত্ব ফলানোর ক্ষেত্রে বিজেপি তৃণমূল কারও দখলেই নেই এইজেলাপরিষদ।

সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে সংখ্যা তত্বের নিরিখে অর্পিতার নেতৃত্বে তৃণমূল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাপরিষদের দখলপুনরায় নিতে একের পর এক রণকৌশল চালিয়ে যাচ্ছে। এদিন অর্পিতা ঘোষের নেতৃত্বে জেলাপরিষদের যশোদাভবন সভাকক্ষে ১১জন সদস্যকে নিয়ে বৈঠক করেন অর্পিতা ঘোষ। বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী বাচ্চু হাসদা প্রাক্তন বিধায়ক সত্যেন রায় ও বিপ্লব খাঁ ও সুভাশিষ পাল সহ তৃণমূলের অন্যান্যরা। উপস্থিত সদস্যদের সমর্থনে শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ প্রবীর রায়কে দলনেতা মনোনীত করে জেলাপরিষদের কাজকর্ম পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

বৈঠক শেষে এদিনও তৃণমূল সভাপতি অর্পিতা ঘোষ জানিয়েছেন যে সংখ্যাতত্ত্বের হিসেবে জেলাপরিষদ একমাত্র তাঁরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। ১৮জনের মধ্যে এই মুহূর্তে তাঁদের সদস্য সংখ্যা ১১জন। ভুলপদক্ষেপ নিয়ে যাঁরা এখনও বিজেপি রয়েছেন তাঁদের মধ্যে আরও অনেকেই ফিরে আসতে চেয়েছেন। আগামী ২১ জুলাইয়ের পর তাঁদের দলে ফিরিয়ে নেওয়া হবে। জেলাপরিষদে তৃণমূল সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ায় সুষ্ঠভাবে কাজকর্ম পরিচালনার লক্ষ্যে প্রবীর রায়কে দলনেতা করা হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

এদিকে  জানিয়েছেন যে কয়েকজনকে ভয় দেখিয়ে তৃণমূলে ফিরিয়ে নেওয়া হলেও এখনো জেলাপরিষদে তাঁরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। পাশাপাশি সভাধিপতি স্বয়ং তাঁদের হওয়ায় জেলাপরিষদের কাজকর্মে বিজেপির কর্তৃত্বই থাকবে বলে তিনি দাবি করেছেন।