কলকাতা: দেশজুড়ে তৃতীয় দফার লকডাউন ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। যদিও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই লকডাউন বাড়ানোর পক্ষে মত দিয়েছিলেন, কিন্তু তৃতীয় দফার লকডাউন ঘোষণা হওয়ার পরই বিরোধিতা করল তৃণমূল।

শুক্রবার বিকেলে তৃতীয় দফার লকডাউন সংক্রান্ত নির্দেশিকা জারি করেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। দেওয়া হয়েছে নতুন বেশ কিছু গাইডলাইন। রেড, অরেঞ্জ এবং গ্রিন- তিনটি জন্য কি নিয়ম জারি থাকবে আর কি নিয়ম শিথিল হবে সে সবই রয়েছে ওই নির্দেশিকায়।

কিন্তু ওই গাইডলাইন সামনে আসার পরই বিরোধিতা করা হয় তৃণমূলের তরফ থেকে। এদিন তৃণমূলের পক্ষ থেকে সৌগত রায় বলেন, “লকডাউন বাড়ানো নিয়ে আমাদের কোনো আপত্তি নেই, তবে ঠিক কী কারণে লকডাউন বাড়ানো হল সেটা স্পষ্টভাবে জানালে ভালো হত।”

রাজ্যগুলিকে আর্থিক অনুদান দেওয়ার কথা বলেছেন সৌগত রায়। তিনি বলেন কেন্দ্র স্পষ্ট করে জানাক যে তারা আর্থিক পরিস্থিতির উন্নয়ন চাইছে কি, চাইছে না। অসংগঠিত ক্ষেত্র ও কৃষির ক্ষেত্রে কোনও অনুদান দেওয়া হবে কি হবে না সে ব্যাপারেও জানতে চেয়েছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, “আমরা জানি যে আমরা মহামারীর মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু, এখন কী পরিস্থিতি, গোষ্ঠী সংক্রমন হয়েছে কিনা, সে ব্যাপারে বিস্তারিত জানাক কেন্দ্র।”

শুক্রবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এই লকডাউন বাড়ানোর কথা ঘোষণা করেছে। আরও দু’সপ্তাহের জন্য লকডাউন বাড়ানো হবে বলে জানা গিয়েছে। অর্থাৎ ১৭ মে পর্যন্ত জারি থাকবে লকডাউন।

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের উপস্থিতিতে একটি বৈঠক হয়। সেই বৈঠকেও লকডাউন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এরপরই কেন্দ্রের তরফে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হল। যদিও পরবর্তী দফার এই লকডাউনে নতুন কিছু গাইডলাইন জারি করবে কেন্দ্র।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ