শীতকাল মানেই নানান রঙ-বেরঙের ফুলের সমাহার। গাঁদা, গোলাপের মত পরিচিত ফুলের পাশাপাশি এই সময় বাড়ির টবে ফুটিয়ে তোলা টায় দেশী-বিদেশী বিভিন্ন প্রজাতির ফুল৷ আপনি চাইলে নিজের হাতেই সেই ফুল ফোটাতে পারেন৷ আর সেই ফুল দিয়েই সাজিয়ে তুলুন বাড়ির বারান্দা, করিডোর কিংবা ঘর৷ যেমন বারান্দার গ্রিলে লতিয়ে দেওয়ার জন্য নীলমণি লতা, মর্নিং গ্লোরি, রেল লতা, সুইট পি ভালো লাগবে। টবের জন্য নিতে পারেন গাঁদা, ডালিয়া, চন্দ্রমল্লিকা, জারবেরা, কারনেশান, ক্যালেন্ডুলা, অ্যাস্টার ইত্যাদি।তবে ফুল ফোটানোর আগে এই পরামর্শগুলো অবশ্যই মনে রাখবেন৷

শীতে ভালো ফুল ফোটানোর টিপস:
১. রৌদ্দজ্বল জায়গায় গাছ লাগান। ২. গাছে জল দেওয়ার সময় শুধু গাছের গোড়ায় জল না দিয়ে ঝাঁজরি দিয়ে গাছের ওপর থেকে বৃষ্টির মতো গাছ-পাতা ভিজিয়ে নিয়মিত হালকা জল দিন। এতে গাছ বেশি সতেজ হবে। ৩. গাছের চেহারা দুর্বল দেখা গেলে পরপর তিন-চার দিন এক ঝাঁজরি পানির মধ্যে দু চা চামচ ইউরিয়া সার গুলে ওপরের নিয়মে সেচ দিন। ৪. সরষের খোল কয়েক দিন একটি পাত্রে ভিজিয়ে রেখে তা গুলে ১৫ দিন পরপর গাছের গোড়ার চারদিকে দিন। অন্তত কুঁড়ি না আসা পর্যন্ত দিন।

৫. ফুল ফোটা শুরু হলে তখন থেকে ফুল-পাতা ভিজিয়ে জল না দেওয়া ভালো। ৬. গাঁদা ফুলের আকার বড় করতে চাইলে প্রথম কুঁড়িগুলো নখ দিয়ে খুঁটে ভেঙে দিন। ৭. স্বাভাবিক সময়ের আগে গাছে কুঁড়ি এলে তা ভেঙে দিন। ৮. গাছের গোড়া ভেজা থাকলে জল দেবেন না। ৯. প্রতি ১০-১৫ দিন পরপর গাছের গোড়ার মাটি হালকা খুঁচিয়ে দিন। ১০. ফুল শুকাতে শুরু করলে দ্রুত তা গাছ থেকে কেটে ফেলুন।

প্যানজি গাছের বয়স হলে ফুল ছোট হয়ে আসবে। এ অবস্থায় গোড়া থেকে ছেঁটে দিলে নতুন গজানো ডালে আবার ভালো ফুল ফুটবে। অ্যান্টিরিনামের ভালো ফুল পেতে হলে শুধু মাঝের ডালটি রেখে অন্য সব ডাল কচি অবস্থায় ছেঁটে দেবেন।