নয়াদিল্লি: দেশীয় নিরাপত্তা সুরক্ষিত রাখতে ও মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য বিদেশ পাচার হওয়া রুখতে টিকটক সহ মোট ৫৯ টি অ্যাপকে নিষিদ্ধ করেছে মোদী সরকার। এরপরেই সামনে এসেছে একটি রিপোর্ট। যাতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে, মোদীর একচালে কুপোকাত হয়ে পড়েছে চিনা সংস্থা বাইটডান্স লিমিটেডে। এই কোম্পানির আওতাতেই ছিল টিকটক।

শুধু টিকটক না, বাইটডান্সের আরও দুটি অ্যাপ হ্যালো ও ভিভা ভিডিও ব্যান হয়েছে। ফলে বিরাট ক্ষতির মুখে পড়েছে ওই চিনা কোম্পানি। একটি রিপোর্ট জানাচ্ছে ৬ বিলিয়ন ডলার ক্ষতির মুখোমুখি ওই সংস্থা।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের প্রথম ৩ মাসে ভারতে টিকটক অ্যাপটি ৬১১ মিলিয়ন সংখ্যক ডাউনলোড হয়েছিল টিকটক। লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলছিল ব্যবহারকারীর সংখ্যাও। কিন্তু এরই মধ্যে চিনের সঙ্গে সংঘাতময় পরিবেশে ব্যান হল টিকটক।

অ্যাপ বন্ধ হওয়ায় একদিকে যেমন সমূহ ক্ষতি হয়েছে বাইটডান্সের একই ভাবে ওই সংস্থায় কর্মরত প্রায় ২০০০ ভারতীয়ও এখন গভীর সংকটে পড়েছেন।

এর আগেও একাধিক বার ভারতীয়দের ব্যক্তিগত তথ্য, সার্চ হিস্টরি ইত্যাদির উপর নজরদারি বা তথ্য হাতানোর মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে একাধিক চিনা সংস্থার বিরুদ্ধে। তবে এই প্রথম এত কড়া মনোভাব দেখাল কেন্দ্র।

এই অ্যাপ ব্যান করার পর থেকেই পাওয়া গিয়েছে একাধিক মিশ্র প্রতিক্রিয়া। সাইবার বিশেষজ্ঞ থেকে শুরু করে অনেকেই জোর দিয়েছেন বিকল্প অ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে। কারণ যে বিষয়ের উপর ভিত্তি করে সরকারের তরফে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা হল নিরাপত্তা। কিন্তু একাধিক টিকটকারীদের দাবি এই অ্যাপ নিছক বিনোদনের জন্য। তাহলে কেন এই অ্যাপের উপরে চাপান হল এই নিষেধাজ্ঞার কোপ।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ